শ্রীনগরে ভোট যুদ্ধে আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দী স্বতন্ত্র ও বিদ্রোহী প্রার্থীরা

আরিফ হোসেন: শ্রীনগর উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন জমে উঠেছে। এ উপজেলায় আগামী ৩১ মার্চ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে। নির্বাচনকে সামনে রেখে পাড়া মহল্লায় জোড় প্রচারণা চললেও নির্বাচণ সুষ্ঠ হবে কিনা এনিয়ে সাধারণ ভোটারদের মধ্যে রয়েছে শঙ্কা। উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থীদের মধ্যে ষোলঘর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সাথে বিএনপি প্রার্থী লিয়াজো করায় এবং মনোনয়ন যাচাই বাছাইয়ের পর এক আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী তার দলীয় প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাড়ানোয় উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতাকারী প্রার্থীর সংখ্যা এখন ৫৫।








এদের মধ্যে অধিকাংশই ঢাকায় বসবাসকারী এবং ব্যবসায়ী। বিএনপির ঘাটি হিসাবে পরিচিত শ্রীনগর উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে উপজেলা বিএনপির কোন্দলের কারনে অধিকাংশ ইউনিয়নে বিএনপির তৃতীয়/চতুর্থ সারির নেতারা প্রার্থী হওয়ায় ইউনিয়ন গুলোতে ভোটযুদ্ধে বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা এগিয়ে থাকায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের সাথে প্রতিদ্বন্দিতা গড়ে উঠেছে তাদেরই। তবে অনেক ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা বিরোধী প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা সৃষ্টি করায় সাধারণ ভোটারদের মধ্যে নির্বাচন সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ হবে কিনা তা নিয়ে দেখা দিয়েছে নানা রকম শঙ্কা।

বীরতারা: এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আজিম হোসেন খান, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান জালাল উদ্দিন মিয়ার ছেলে মো: রেজাউল করিম রাজু, আওয়ামী লীগের আরেক বিদ্রোহী প্রার্থী সিদ্দিকুর রহমান, বিএনপির মো: সোহরাব হোসেন, জাতীয় পার্টির মো: বাদল মিয়া নির্বাচন করলেও সাধারণ ভোটাররা জানান এই ইউনিয়নে আজিম হোসেন খান ও রেজাউল করিম রাজুর সাথেই লড়াই হবে।

হাঁসাড়া: আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আহসান হাবীব, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী বাবুল আক্তার মন্টু, বিএনপির মো: নাছিরুল আলম পলাশ, ইসলামী শাসন তন্ত্রের আব্বাস মাঝি, জাতীয় পার্টির আকরাম হোসেন আজিজ, স্বতন্ত্র প্রার্থী সোলাইমান খান নির্বাচন করছেন। সাধারণ ভোটারদের মতে এখানে আহসান হাবীব ও সোলায়মান খান ভোট যুদ্ধে এগিয়ে রয়েছেন।

বাড়ৈখালী: আওয়ামী লীগ প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন, বিদ্রোহী বর্তমান চেয়ারম্যান সেলিম তালুকদার, বিএনপি প্রার্থী মিজানুর রহমান। এদের মধ্যে ইকবাল হোসেন ও সেলিম তালুকদারের মধ্যে লড়াই হবে।

আটপাড়া: আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো: বিল্লাল হোসেন খান, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী মো: ফজলুর রহমান, বিএনপির আ: কাদির ঝিলু, বিকল্পধারার শামীম আহমেদ, স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আইয়ূব আলী খান। এ ইউনিয়নে ফজলুর রহমান ও আইয়ূব খানের মধ্যে লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

তন্তর: আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো: জাকির হোসেন, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আলী আকবর, বিএনপির মো: আনোয়ার হোসেন হৃদয় (ধানের শীষ), ইসলামী শাসন তন্ত্রের মো: ওসমান মিয়া, স্বতন্ত্র হাসান খান। প্রতিদ্বন্দীতায় রয়েছেন জাকির হোসেন ও আলী আকবর। এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ কর্মীরা একাধিক সহিংসতার ঘটনা জন্ম দেওয়ায় সাধারণ ভোটাররা শংকার মধ্যে রয়েছে।

কুকুটিয়া: আওয়ামী লীগ প্রার্থী শেখ আ: কাদির লিটন, বিএনপির মোয়াজ্জেম হোসেন, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী বাবুল হোসেন বাবু, স্বতন্ত্র রাজন হোসেন ও শাকিল আরমান। এ ইউনিয়নে বাবুল হোসেন বাবু ও শেখ আ: কাদির লিটন রয়েছেন প্রতিদ্বন্দিতার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন। এই ইউনিয়নে আ: কাদির লিটনের কর্মী স্থানীয় এক যুবলীগ নেতার সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ইতিমধ্যে তাকে অনেকটা পেছনে ফেলে দিয়েছে।

শ্রীনগর: আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোখলেছুর রহমান, বিএনপির আশরাফ হোসেন মিলন, বিএনপির বিদ্রোহী মো: তাজুল ইসলাম, ইসলামী শাসনতন্ত্রের সিরাজুল ইসলাম। এ ইউনিয়নে মোখলেছুর রহমান ও তাজুল ইসলামের মধ্যে লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে।

পাটাভোগ: আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফিরোজ আল মামুন, বিদ্রোহী বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ ডালু, বিএনপির মো: মহিউদ্দিন মিয়া। এ ইউনিয়নে ফিরোজ আল মামুন ও আবুুল কালাম আজাদ ডালুর মধ্যে লড়াই হতে পারে।

শ্যামসিদ্ধি: আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুল ইসলাম মামুন, বিএনপির প্রার্থী মো: রতন মিয়া, ইসলামী শাসনতন্ত্রের এছাক মিয়া। এখানে শফিকুল ইসলাম মামুন ও রতন মিয়ার রয়েছেন লড়াইয়ে।

কোলাপাড়া: আওয়ামী লীগ প্রার্থী হাজী নেছার উল্লাহ সুজন, বিএনপির কামরুজ্জামান পলাশ , স্বতন্ত্র প্রার্থী ঈমাম হোসেন। নেছার উল্লাহ সুজন ও কামরুজ্জামান পলাশের মধ্যেই হবে ভোট যুদ্ধ।

রাঢ়ীখাল: আওয়ামী লীগ প্রার্থী আ ঃ বারেক খান বারী, বিএনপির সোলায়মান খান, ইসলামী শাসনতন্ত্রের মামুন মিয়া, স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন শামীম খান, মোকাজ্জল হোসেন ও মাসুদুল ইসলাম। বারেক খান বারী ও সোলায়মান খান প্রচারণার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন।

ভাগ্যকূল: আওয়ামী লীগ প্রার্থী কাজী মনোয়ার হোসেন , বিএনপির মো ঃ ইউসুফ আলী, ইসলামী শাসনতন্ত্রের আলাউদ্দিন আকন, স্বতন্ত্র মেহেদী জামান। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মনির হোসেন মিটুল দলীয় সার্থ বিবেচনায় কাজী মনোয়ার হোসেনকে সমর্থন দেওয়ায় এ ইউনিয়নে লড়াইয়ে রয়েছেন কাজী মনোয়ার হোসেন ও ইউসুফ আলী।

বাঘড়া: এ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির দুজন প্রার্থী রয়েছেন। আওয়ামী লীগের মো: নুরুল ইসলাম ও বিএনপির মোহাম্মদ আলী দুজনই নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.