মুন্সীগঞ্জে অপহরনকারীদের ধরতে সাহায্য করলেন ৯৯৯

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : রবিশাল থেকে ঢাকার উদ্দেশ্য আসা লঞ্চ যাত্রী গোলাপ চন্দ্র মন্ডলকে অপহরণ করার পর মুক্তিপন দাবি করে বেশিহ্মন আটকে রাখা সম্ভব হয়নি মুন্সীগঞ্জ শহরের লঞ্চ ঘাট সংলগ্ন হাটলহ্মীগঞ্জের চারজন অপহরনকারীর পক্ষে। বরং পুলিশ অন লাইন সেবা সংস্থা ৯৯৯ সব পরিকল্পনা ভেস্তে দিয়ে উল্টো পুলিশের হাতে ধরিয়ে দিলেন তাদের। বৃহস্পতিবার বেলা দুইটায়, পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সাংবাদিকদেরকে ব্রিফিং কালে এমন গল্প তোলে ধরেন পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম। তিনি জানান, বুধবার বরিশাল থেকে ঢাকাগামী এমভি ফারহান-৭ লঞ্চ থেকে অপহরন করে সদরের হাটলক্ষ্মীগঞ্জ এলাকায় আটকে রাখে গোলাপ চন্দ্র মন্ডল । পুলিশের বিশেষ অভিযানে এই অপহরণ চক্র ও অপহৃত ব্যাক্তিকে উদ্ধার করা হয়।

জায়েদুল আলম জানান, আমির হোসেন (৪০), সুমন মিয়া (২২), মঞ্জিল (২৮), আব্দুল রব (৩৫) ও কৌশলে অপহরণ করে আব্দুর রবের বাড়ির রান্না ঘড়ে আটকে রাখে। এরপর মোবাইলে অপহরণকারীরা গোপালের পরিবারের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। যথাসময়ে টাকা আনতে দেরি হলে গোপাল চন্দ্র করে মারধর করে। পরবর্তীতে গোপালের পরিবার বাংলাদেশ পুলিশ অনলাইন সেবা সংস্থা(৯৯৯)যোগাযোগ করলে তারা মুন্সীগঞ্জ সদর থানাকে বিষয়টি জানায়। বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে সদর থানার কর্মরত এএসআই তানিয়া অপহৃত ব্যক্তির বোন সেজে অপহরণকারীদের ফোন দেয় এবং আকুতী মিনিতির মাধ্যমে ৪৫ হাজার টাকা চুক্তি করে। অপহরণকারীরা তানিয়াকে হাটলক্ষ্মীগঞ্জ এলাকার মুন্সীগঞ্জ রেস্তোরাঁয় আসতে বলে। পরবর্তীতে টাকা গণনার এক পর্যায়ে এস আই মোঃ ইলিয়াস মিয়ার নেতৃত্বে পুলিশের দল তাদের আটক করে। পরে অপহরণকারীদের তথ্যের ভিত্তিতে হাটলক্ষীগঞ্জে একটি বাড়ির রান্না ঘর থেকে গোপালকে উদ্ধার করা হয়। আসামীদের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.