শ্রীনগরে শতাধিক পরিবার জিম্মি চেয়ারম্যানের কাছে

মুখ খুললেই যুবদল নেতার টর্চার সেলে নির্যাতন
শ্রীনগর উপজেলার তন্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ওই ইউনিয়নের যুবলীগের সভাপতি জাকির হোসেনের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছে ব্রাহ্মণখোলা গ্রামের শতাধিক পরিবার। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে চেয়ারম্যান নিজের বাড়িতে রাস্তা নেয়ার জন্য ওই এলাকার শতাধিক পরিবারকে জিম্মি করেছেন। তাদের ফসলি জমি, বসতবাড়িসহ সরকারি স্কুলের মাটি ভেকু দিয়ে কেটে নিয়েছেন। এ ছাড়া কয়েকশ’ গাছ কাটারও অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, এসবের মূলে রয়েছে ইউপি নির্বাচনের প্রতিশোধ। প্রতিশোধ নিতে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে বিগত চেয়ারম্যানের আমলে নির্মিত প্রায় ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ইট বিছানো দেড় কিলোমিটার রাস্তার সব ইট তুলে ফেলা হয়েছে। এ কাজে তিনি উপজেলা এলজিইডির কোনো অনুমতি নেননি। এ কাজ করতে স্থানীয়দের কাছ থেকে জোর করে প্রায় ৩০ লাখ টাকা চাঁদা তুলেছেন। কেউ চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে বা মাটি কাটতে বাধা দিলে রাতের আঁধারে ওই এলাকার ত্রাস চেয়ারম্যানের বেয়াই জেলা যুবদল নেতা নাসির উদ্দিনের টর্চার সেলে আটকে রেখে নির্যাতন করা হচ্ছে।

রোববার সকালে সরেজমিন ওই এলাকায় দেখা যায়, ভেকু দিয়ে মাটি কাটার কারণে একেক জনের বাড়ির সামনে বড় বড় গর্ত হয়েছে। এ ছাড়া জমিতে ছোট ড্রেজার বসিয়ে অনেকটা পুকুর বানানো হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের মাটি কাটা হয়েছে নির্বিচারে। মানুষের ভেতরে চাপা কষ্ট বিরাজ করছে। কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না। জানা যায়, ব্রাহ্মণখোলা মালিবাগান এলাকা থেকে দেড় কিলোমিটার দীর্ঘ ও ১২ ফুট প্রশস্ত রাস্তাটি উপজেলার এলজিইডির তালিকাভুক্ত এবং তাদের অর্থায়নে ইট বিছানো হয়। কিন্তু ইউপি নির্বাচনে যারা তার বিরোধিতা করেছে শাস্তি হিসেবে তাদের বাড়িঘর কেটে কোনো কোনো স্থানে রাস্তা ২৫ ফুট পর্যন্ত প্রশস্ত করা হয়েছে। মাটির জোগান দেয়া হয়েছে অন্যদের জমিতে ড্রেজার বসিয়ে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, মনে হচ্ছে আমরা এরশাদ শিকদারের এলাকায় বসবাস করছি। ওই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আলী আকবর জানান, ১০ দিন আগে এলাকাবাসী উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে বিষয়টি লিখিতভাবে জানিয়েছিল। তাতে উল্টো ফল হয়েছে। উপজেলা এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী আ. মান্নান বলেন, এলজিইডির রাস্তার ইট তুলে নেয়া অন্যায়। আমার অফিসের লোক পাঠিয়ে যে তথ্য পেয়েছি তাতে জাকির চেয়ারম্যান যা করছে তা নিয়মবহির্ভূত। তন্তর ইউপি চেয়ারম্যান টর্চার সেলের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, জনগণের সুবিধার জন্যই রাস্তা করা হচ্ছে। তবে অর্থের উৎস কী এমন প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, জেলায় মিটিং চলছে তাই পরে কথা বলব।

যুগান্তর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.