শ্রীনগরে মেয়ের সম্ভ্রম বাচাঁতে স্বামীর লিঙ্গ কেটে নিয়েছে স্ত্রী

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে মেয়ের সম্ভ্রম বাঁচাতে স্বামীর লিঙ্গ কেটে নিয়েছে এক স্ত্রী। গত শুক্রবার ঈদের রাতে উপজেলার বাড়ৈখালী ইউনিয়নের শ্রীধরপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত স্বামী ওয়ারিশ ইসলাম (৪০) কে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে স্ত্রী দোলন আক্তার (৩৫) নিজে পুলিশের হাতে ধরা দেয়।

শ্রীনগর থানায় স্ত্রী দোলন আক্তার কান্না জড়িত কন্ঠে সাংবাদিকদের জানান, মা হিসেবে মেয়ের সম্ভ্রম বাচাঁনোর জন্য এর বাইরে তার আর কিছু করার ছিলনা। তিনি জানান, তার স্বামী বাড়ৈখালী বাজারে নাবিল টেইলার্সের মালিক। তাদের সংসারে এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। এলাকায় নারী লোভী হিসাবে পরিচিত তার স্বামী বিভিন্ন নারীর সাথে পরকিয়ায় আসক্ত। একাধিক বার সে পরনারীর সাথে অবৈধ ভাবে মেলামেশা করা সময় জনতার হাতে ধরা পরে মারধরেরও স্বীকার হয়েছে। স্ত্রী দোলন বেগম সব কিছু মেনে নিলেও নিজ মেয়ের উপর স্বামীর কুনজর সে মেনে নিতে পারেনি। একারনে বেশ কয়েক বছর আগে স্বামীর সংসার ছেড়ে চলে যায়। পরে পারিবারিক ভাবে মিমাংসার মাধ্যমে স্বামীর সংসারে ফিরে আসে।

কিছুদিন পর ওয়ারিশ তার মেয়েকে কুপ্রস্তাব দিলে মেয়ে বিষয়টি তার মাকে জানায়। উপায় না দেখে দোলন বেগম তরিঘরি করে পাশ্ববর্তী উপজেলার এক প্রবাসীর সাথে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দেন। তারপরও স্বামীর সৃষ্টি ঠিক না হওয়ায় তিনি স্বামীকে আরেকটি বিয়ে করার পরামর্শ দেন। তিন দিন আগে ঈদ উপলক্ষে মেয়ে বেড়াতে আসলে স্বামী উঠে পরে লাগে। বিষয়টি তিনি দেবর ভাসুরদের জানান এবং মেয়েকে ঝা এর ঘরে শোয়ার ব্যবস্থা করেন।

এতে স্বামী ওয়ারিশ ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং স্ত্রী দোলন আক্তারকে মারধর করে। উপায় না দেখে দোলন আক্তার ঈদের দিন সন্ধ্যায় ওয়ারিশকে সেমাইয়ের সাথে ঘুমের ঔষধ খাওয়ায়। রাত বারটার দিকে ঘুমানো অবস্থায় ধারালো ব্লেড দিয়ে স্বামীর লিঙ্গ কেটে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। পরে ওয়ারিশের চিৎকারে আশ পাশের লোকজন এসে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিছুক্ষন পর স্ত্রী দোলন বেগম নিজ ঘরে ফিরে আসে। সকালে পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আলমগীর হোসেন জানান, মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.