মুল সাইটে যাওয়ার জন্য ক্লিক করুন

পাঠক সংখ্যা

  • 9,744 জন

বিভাগ অনুযায়ী…

পুরনো খবর…

মোল্লাকান্দিঃ আ’লীগের কমিটি নিয়ে উত্তপ্ত

একজনের দীর্ঘ সময় সভাপতি পদ ধরে রাখা এবং অপর শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর প্রার্থী হওয়া নিয়ে মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে নতুন করে রাজনীতির মেরুকরণ শুরু হয়েছে।

স্থানীয় রাজনীতির একটি পক্ষ জেলার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ও অস্ত্রধারী ইউসুফ ফকিরের পক্ষে এবং আরেক পক্ষ বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও একই পদের প্রার্থী ফরহাদ খানের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

এতে করে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে উপ্তত্ত ও অশান্ত পরিবেশ বিরাজ করছে। যদিও দীর্ঘকাল ধরে এলাকার আধিপত্য বিস্তার ও নির্বাচন এবং দলীয় কোন্দলে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে একের পর এক সহিংস ঘটনা ঘটে আসছে। এই ইউনিয়নের দুই শীর্ষ সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‌্যাব।

এদিকে, ককটেলের জন্য বিখ্যাত এই ইউনিয়ন মোল্লাকান্দি অনেকের কাছে ককটেলকান্দি ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন। সম্মেলনের অদূরে ইউসুফ ফকির ও ফরহাদ খান গ্রুপের লোকজনের মধ্যে গত ০৭ অক্টোবর সংঘর্ষের ঘটনায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন স্থগিত করা হয়েছে।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-১ এর কমান্ডার ও পুলিশ সুপার মো. এনায়েত হোসেন মান্নান বলেন, ‘গত ০৩ সেপ্টেম্বর রাতে মাদক বেচাকেনার সংবাদ পেয়ে মহেশপুর গ্রামে অভিযান চালান। এ সময় গ্রামের ইউসুফ ফকিরকে আটক করা হয়। এ সময় তার নিকট থেকে ৪০৫টি ইয়াবা ট্যাবলেট, দুই ক্যান বিয়ার, মাদক বিক্রির কাজে ব্যবহৃত মোবাইল সেট একটি ও মাদক বিক্রির নগদ ৬ লাখ ৮ হাজার ২শ’ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।’

র‌্যাব আরও জানায়, শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী ইউসুফ ফকির দীর্ঘদিন যাবৎ জেলার বিভিন্ন স্থানে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছে। পরদিন ০৪ সেপ্টেম্বর রাতে মাদকসহ দুটি মামলায় ইউসুফ ফকিরকে মুন্সীগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করে র‌্যাব। কাতারেও বাংলাদেশ থেকে তারা ইয়াবা পাচার করতো। কাতারে ইউসুফ ফকিরের দুই ভাই খলিল ফকির ও রসুল ফকির ইয়াবাসহ আটক হয়ে কারাগারে যায় বলে একাধিক সূত্র দাবি করেছে। এরপর থেকেই তারা কাতার ছেড়ে বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রার্থী ইউসুফ ফকির কারাগারে রয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ইউসুফ ফকিরকে আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় তার সমর্থক ও সহযোগীদের বাঁধার সম্মুখীন হয় র‌্যাব সদস্যরা। গাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পথে গাছ ফেলে বাঁধা দেওয়া হয় র‌্যাব সদস্যদের। এরপর আমঘাটা এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, গত ০৭ সেপ্টেম্বর সকালে মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চরডুমুরিয়া ঈদগাঁ মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন শুরু হয়। বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সম্মেলন স্থলের অদূরে চরডুমুরিয়া এলাকায় ইউসুফ ফকিরের পক্ষের লোকজন মিছিল বের করলে অপর সভাপতি প্রার্থী ফরহাদ খান গ্রুপের লোকজনের মধ্যে হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। আহত হয় প্রায় ২৫ জন। এ অবস্থায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করে সম্মেলন স্থল ত্যাগ করেন তিনি।

সভাপতি প্রার্থী ইউসুফ ফকিরের সমর্থকদের অভিযোগ, ১৮ বছর ধরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ দখল করে রেখেছেন ফরহাদ খান। এবারও তিনি একই পদ নিজের দখলে রাখতে চান। ইউসুফ ফকির সভাপতি প্রার্থী হওয়ায় তার নির্দেশে সন্ত্রাসীরা তাদের ওপর হামলা চালালে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা বলেন, ‘ইউসুফ ফকির গত দেড় বছর ধরে সভাপতি প্রার্থী হওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছে।’

এমপি, মন্ত্রীরা মাদক ব্যবসায়ী হতে পারলে ইউসুফ ফকির কেন সভাপতি হতে পারবে না বলে প্রশ্ন রাখেন এই চেয়ারম্যান।

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসার উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘সংঘর্ষের ঘটনায় পরিস্থিতি অনুকূলের বাইরে চলে গেলে সম্মেলন স্থগিত ঘোষণা করতে বাধ্য হই। আগামী ১৮ অক্টোবরের মধ্যে তার অধীনে ইউনিয়ন কমিটিগুলো শেষ করতে হবে।’

মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে করা হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগামী ১৮ অক্টোবরের পর ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলন আহ্বান করা হবে। ইউসুফ ফকির প্রার্থী কি না সে বিষয়ে তিনি কিছু জানেননা।’

কোন খারাপ লোক, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীকে কমিটিতে স্থান দেয়া হবে না বলেও জানান উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসার উদ্দিন ভূঁইয়া।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিচুর রহমান বলেন, ‘ইউসুফ ফকিরের বিরুদ্ধে বিস্ফোরকসহ আরও ৫টি মামলা রয়েছে। গত ৭ অক্টোবর কাউন্সিল ঘিরে চরডুমুরিয়া এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ খানকে প্রধান আসামি করে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এছাড়াও, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনার স্বামী আব্দুল হক দেওয়ানকে প্রধান আসামি করে আরও একটি এজাহার দাখিল করা হয়েছে সদর থানায়।

অবজারভার

Leave a Reply

You can use these HTML tags

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

  

  

  

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.