লঞ্চ ডুবি: উদ্ধার ৩২ লাশের মধ্যে মুন্সীগঞ্জের ১৯

অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে বুড়িগঙ্গায় ডুবে যাওয়া মর্নিং বার্ড লঞ্চ থেকে ৩২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তার মধ্যে ১৯ জনই লাশই মুন্সীগঞ্জ সদর এলাকার বাসিন্দা।

সোমবার (২৯ জুন) সন্ধ্যার দিয়ে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

লঞ্চডুবির ঘটনায় মুন্সীগঞ্জের ‍মিরকাদিম, পঞ্চসার রামপাল, বজ্রযোগিনী এলাকার ঘরে ঘরে এখন চলছে শোকের মাতম।

এর আগে সোমবার সকাল ৭টা ৫৫এর দিকে এমএল মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি মুন্সীগঞ্জের কাঠপট্টি এলাকা থেকে সদরঘাটের উদ্দেশে রওনা হয়। সকাল ৯টার দিকে ঢাকার সদরঘাটের কাছেই ফরাশগঞ্জ ঘাট এলাকায় আরেকটি লঞ্চ ধাক্কা দিলে মর্নিং বার্ড ডুবে যায়।

লঞ্চে থাকা মিরকাদিমের বেঁচে ফেরা যাত্রী নাজমা আক্তার জানান, লঞ্চের উপর ও নিচে মিলিয়ে ১৫০ এর অধিক যাত্রী ছিলো। যাদের সবাই মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন এলাকার। এর মধ্যে ৩০-৪০ জন সাঁতার কেটে বিভিন্নভাবে বেঁচে গেছেন। আরও ২০-৩০ জন যাত্রী নিখোঁজ রয়েছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক জানান, ময়ূর–২ নামের একটি লঞ্চ সদরঘাট লালপট্টি থেকে চাঁদপুরের দিকে যাচ্ছিল। ওই লঞ্চটি মর্নিং বার্ডকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে মর্নিং বার্ড নামের লঞ্চটি ডুবে যায়।

বিআইডব্লিউটিএর ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক এ কে এম আরিফউদ্দিন জানান, ধাক্কা দেওয়া লঞ্চ ময়ূর–২ জব্দ করা হয়েছে। তবে লঞ্চের চালক পালিয়ে গেছেন।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ জামাল জানান, উদ্ধার করা লাশের মধ্যে পুরুষ নারী ও শিশু রয়েছে।

এদিকে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান তালুকদার লঞ্চডুবির ঘটনায় খোঁজখবর রাখছেন এবং ঘটনাস্থলে মুন্সীগঞ্জের একজন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রয়েছেন। তিনি সার্বিক পর্যবেক্ষণ করছেন বলে প্রসাশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

রাইজিংবিডি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.