ফেরি বন্ধ, ৫০০ টাকায় মোটরসাইকেল পার করছে ট্রলার

শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ। তাই ট্রলারে পদ্মাপাড়ি দিচ্ছে মোটরসাইকেল। ফেরি চালু থাকলে নির্ধারিত ভাড়া ছিল ৭০ টাকা। কিন্তু ফেরি বন্ধের অজুহাতে ট্রলার চালকরা ৫০০-৬০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করছে।

সোমবার (১৪ জুলাই) সকাল থেকেই শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে মোটরসাইকেল বহন করে চলাচল করছে ট্রলারগুলো। শিমুলিয়া ঘাটের এক নম্বর ফেরিঘাট যেখানে ফেরি এসে ভিড়ে সেখানেই ট্রলারগুলো। এছাড়া পদ্মাসেতুর কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড ও তিন নম্বর রো রো ফেরিঘাটের কাছেও ট্রলারগুলোর অবস্থান।

মোহাম্মদ সৈকত বাংলানিউজকে জানান, সকালে ঘাটে এসে দেখি ফেরি চলাচল বন্ধ। শিমুলিয়া ঘাট থেকে কাঁঠালবাড়ি ঘাটে যাওয়ার জন্য এখন একমাত্র উপায় ট্রলার। সেজন্য বাধ্য হয়ে ৫০০ টাকা ভাড়া দিয়ে যেতে হচ্ছে। তবে ট্রলার ছাড়া আর কোনো মাধ্যম না থাকার সুযোগ নিয়ে বেশি টাকা নিচ্ছে। একেকটি ট্রলারে প্রায় ১৫টি মোটরসাইকেল বহন করা হচ্ছে। এছাড়া ফেরি অনির্দিষ্টকাল বন্ধ এই বিষয়টিও ঘাটে প্রচার করা হচ্ছে না। যাতে করে অনেকেই বিভ্রান্ত হচ্ছেন।

ফয়সাল হোসেন বাংলানিউজকে জানান, কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে ৫০০ টাকা দিয়ে শিমুলিয়া ঘাট এসেছি। আসার পথে অনেক ঝুঁকি নিতে হয়েছে। ট্রলারের ভিতর পানি ঢুকে পড়েছিল। কয়েকজন মোটরসাইকেল ট্রলারে ওঠাতে গিয়ে আহতও হয়েছেন।

লৌহজং উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হুমায়ুন কবির বাংলানিউজকে জানান, নৌ-পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট ঘাট কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে জন্য বলা হচ্ছে।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.