যে কারণে মুন্সীগঞ্জে পরকীয়া প্রেমিকযুগলের মৃত্যু

মুন্সীগঞ্জে শয়নকক্ষ থেকে প্রেমিকযুগলের গলায় ফাঁস দেয়া মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বাগমামুদালী এলাকার ভাড়া বাসা থেকে প্রেমিক দীপ্র মজুমদার জয় (২৫) ও প্রেমিকা মিতু সরকারের (২৫) মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মিতু সরকার শহরের বাগমামুদালী এলাকার মৃত বলরাম চন্দ্র সরকারের কন্যা। দীপ্র মজুমদার জয় ঢাকা ডেমরা এলাকার পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত সুবেদার আব্দুল মান্নানের ছেলে।

নিহত মিতু সরকারের মা শেফালি রাণী সরকার জানান, মিতু সরকার তার সঙ্গে মুন্সীগঞ্জ শহরের বাগমামুদালী এলাকার আব্দুল কাদিরের বাড়িতে বাড়াবাড়িতে দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করছিলেন। মা শেফালি রাণী সরকার স্থানীয় ইদ্রাকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বুয়ার চাকরি করেন। বাবা সবজি বিক্রেতা বলরাম চন্দ্র সরকার কিছুদিন হলো মারা গেছেন। ঢাকার কেরানীগঞ্জের এক ছেলের সঙ্গে এগারো বছর আগে মেয়ে মিতু সরকারের বিয়ে হয়। তাদের সংসারে অম্বিকা নামের সাত বছরের এক কন্যা সন্তান রয়েছে। কয়েক মাস আগে স্বামীর সঙ্গে মিতুর বিচ্ছেদ ঘটলে সে তার মায়ের কাছে এসে মুন্সীগঞ্জ শহরের বাগমামুদালী এলাকায় বসবাস করছিলেন।

এদিকে দীপ্র মজুমদার জয়ের সঙ্গে মিতু সরকারের দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিলো। এ সর্ম্পকের সূত্র ধরে দীপ্র মজুমদার জয় মাঝে মধ্যে মিতুদের বাড়িতে এসে থাকতো। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দীপ্র মজুমদার জয় এ বাড়িতে আসে এবং রাতে মিতুদের পরিবারের সঙ্গে রাতের খাবার খেয়ে পাশের রুমে জয় ও মিতুসহ তার কন্যাসন্তান অম্বিকাকে নিয়ে ঘুমাতে যায়। বুধবার সকালে মিতুর মা শেফালি রাণী সরকার তার মেয়ে মিতুকে ঘুম থেকে জাগাতে ডাকাডাকি করলে ছোট নাতনি অম্বিকা ঘরের ভেতর থেকে দরজা খোলে দেয়।

পরে তিনি ঘরে ঢুকে দেখতে পান মিতু জানালার সঙ্গে ফাঁস দেয় এবং জয় সিলিংফ্যানে ফাঁস দিয়ে ঝুলে রয়েছে। এদিকে শেফালি রাণী সরকার জয় ও মিতুর ফাঁস দেয়ার ঘটনা বাড়িওয়ালাকে জানালে বাড়ির মালিক আব্দুল কাদির বিষয়টি পুলিশকে অবগত করেন। এ খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে প্রেমিক যুগলের মরদেহ উদ্ধার করে।

বাড়ির মালিক আব্দুল কাদির জানান, সকালে আমাদের ভাড়াটিয়া শেফালি রাণী সরকার আমাদের জানালে আমারা ঘটনাটি থানা পুলিশকে অবগত করি। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে মরদেহ উদ্ধার করেছে। তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, দীপ্ত মজুমদার জয় এ বাড়িতে কখন আসে বা আসেনা আমি এ বিষয়টি জানিনা।
মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো.আনিচুর রহমান জানান, ঘটনা শুনার পরে সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে গিয়ে একজন ছেলে ও একজন মেয়ের ফাঁস দেয়া মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তাদের নাম দীপ্রা মজুমদার জয় ও মিতু সরকার।

তিনি আরও বলেন, মিতু সরকার সনাতন ধর্মালম্বী ও জয় ইসলাম ধর্মালম্বী । প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে তাদের দুজনের মাঝে ১-২ বছর যাবত প্রেমের সর্ম্পক ছিলো বলে জানা যায়। মরদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর হয়েছে। আত্মহত্যা কিনা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পরে বলা যাবে।

আর টিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.