নারী দিবসে আদালতে লাঠি হাতে শতবর্ষী মা

বয়সের ভারে ন্যুব্জ মিরজান নেছা (৯৭)। সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেন না। লাঠিতে ভর দিয়ে চলেন। ছেলে ও পুত্রবধূর মারধরের শিকার হয়ে আদালতে মামলা করেছেন।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসে সোমবার (০৮ মার্চ) দুপুরে মুন্সিগঞ্জ আদালতে এসেছেন তিনি। কিন্তু মামলার রায় শুনে কান্নায় ভেঙে পড়েন এই শতবর্ষী নারী।

আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে ম্যাজিস্ট্রেটকে মিরজান নেছা বলেন, আমারে বাড়িতে নিয়ে দেখেন, ছেলেরা কীভাবে মারধর করে দেখবেন। তাদের অত্যাচারে এখানে বিচার চাইতে এসেছি।

তার বক্তব্য শুনে আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এমদাদুল হক মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে দুই ছেলেকে এক মাস করে কারাদণ্ড ও এক হাজার করে টাকা জরিমানা করা হয়। পরে ৩০ দিনের মধ্যে আপিলের শর্তে দুই ছেলেকে জামিন দেন আদালত।

এমন রায় শুনে আদালতের বাইরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন মিরজান নেছা। তিনি বলেন, আমি দুই ছেলের কঠিন সাজা চাই। আদালত তাদের জামিন দিয়েছেন। এটা হয় না।

স্থানীয় সূত্রে ও মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, শ্রীনগর উপজেলার কেয়টখালী গ্রামে স্বামী সমন শেখকে (১০৫) নিয়ে মিরজান নেছার বসবাস। তাদের তিন ছেলে সাত মেয়ে। কিন্তু বৃদ্ধ দম্পতির খোঁজ নেয় না কোনো ছেলে। সহায়-সম্পত্তি কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের।

বৃদ্ধ মা-বাবার চিকিৎসা করানোর শর্তে ছেলে জালাল এবং জামাল ১৩৪ শতাংশ জমি নিজেদের নামে লিখে দিতে বলেন। এতে রাজি হন বৃদ্ধ দম্পতি। কিন্তু দুই ছেলে সাব-রেজেস্ট্রি অফিসে মা-বাবার কাছ থেকে ৪২০ শতাংশ জমি লিখে নেন। যার মূল্য প্রায় পাঁচ কোটি টাকা।

বিষয়টি জানতে পেরে দুই ছেলের কাছে সম্পত্তি ফেরত চান মা। এজন্য ২০১৯ সালের ২৭ মে মাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেন জালাল ও জামাল এবং তাদের স্ত্রী।

এ ঘটনায় মিরজান বেগম মুন্সিগঞ্জ আমলী আদালতে মামলা করেন। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, ছেলে ও পুত্রবধূরা তাকে মারধর করেছেন। জমি লিখে নিয়ে ঘর থেকে বের করে দিয়েছেন।

মিরজান নেছা জানান, তার সম্পত্তি দুই ছেলে লিখে নিয়েছে। সম্পত্তি ফেরত চাওয়ায় তাকে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দিয়েছে। ঘরের জিনিসপত্র লুট করেছে। বিচার চেয়ে আদালতে মামলা করেছেন তিনি।

তিনি আরও জানান, মেয়ের ঘরের নাতিরা তাকে আশ্রয় দেওয়ায় দুই ছেলে, পুত্রবধূ ও নাতিরা হুমকি দিচ্ছে। মেয়ের ও নাতিদের বিরুদ্ধে চারটি মিথ্যা মামলা করেছে দুই ছেলে।

এ সময় আদালতের বারান্দায় কান্নায় ভেঙে পড়ে মিরজান বেগম বলেন, আল্লাহ তুমি আমাকে এই দুনিয়া থেকে নিয়ে যাও। আমি আর বাঁচতে চাই না।

বৃদ্ধ দম্পতির আরেক ছেলে কামাল হোসেন বলেন, কৌশলে মা-বাবার সঙ্গে প্রতারণা করে ভাই-বোনদের ঠকিয়ে সব জমি লিখে নিয়ে যায় জালাল এবং জামাল।

ব.ম শামীম/ঢাকা পোষ্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.