পানিতে ডুবে অন্তঃসত্ত্বা নারীর মৃত্যু, পরিবারের দাবি হত্যা

রিয়াদ হোসাইন: মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে বৃষ্টি মন্ডল (২২) নামের অন্তঃসত্ত্বা এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। তবে নিহতের মায়ের দাবি যৌতুকের জন্য বৃষ্টিকে হত্যা করা হয়েছে।

বুধবার (১৭ মার্চ) গভীর রাতে ঢাকা মিটফোর্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর আগে একইদিন সকালে উপজেলার মালখানগর এলাকায় স্বামীর বাড়ির পাশের একটি পুকুরে গোসল করতে গিয়ে ডুবে যায় সে।

মৃত বৃষ্টি মন্ডল উপজেলার মালখানগর এলাকার রতন মন্ডলের স্ত্রী ও দেবীপুরা গ্রামের প্রয়াত সুনিল মন্ডলের মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকাল ৬ টার দিকে স্বামীর বাড়ির পাশে একটি পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পুকুরে পড়ে যায়। স্বামীসহ স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জ্ঞান ফিরলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ঢাকায় রেফার করেন। রাতে ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সে। পরে বৃহস্পতিবার দুপুরে মৃতদেহ স্বামীর বাড়ি নিয়ে আসলে স্বামীর বাড়ির লোকজন জানায় সে মৃগী রোগী ছিল। কিন্তু মৃতের মা ও স্বজনরা জানান সে মৃগী রোগী ছিল না তাকে হত্যা করা হয়েছে।

বৃষ্টির ভাই সুরঞ্জন মন্ডল ও চাচা বলরাম মন্ডল জানান, তিন বছর আগে বিয়ে হয় বৃষ্টি ও রতনের। তাদের সংসারে দুই বছরের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে ও সে ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিল। বিয়ের সময় ৪ ভরি স্বর্ণ, ৪ লাখ টাকা ও আসবাবপত্রসহ অনেক কিছু দেওয়া হয়। গত ৭ মাস ধরে বিভিন্ন ভাবে বৃষ্টির মায়ের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে নিহত বৃষ্টি। বৃষ্টিকে আরও টাকা নেওয়ার জন্য মারধর করতো তার স্বামী রতন মন্ডল। তাই তারা ধারণা করছেন যৌতুকের জন্য বৃষ্টিকে হত্যা করা হয়েছে।

তবে নিহতের স্বামী রতন মন্ডল জানায়, টাকার জন্য মারধর করা হয় নাই। নিজেদের মধ্যে মাঝে মাঝে ঝগড়া হয়েছে। বুধবার সকালে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে পড়ে যায় বৃষ্টি। পরে পাশের বাড়ির হুজুরের স্ত্রী ঘাটে ওর স্যান্ডেল- কাপর চোপর দেখে খবর দেয়। আমরা দৌড়ে গিয়ে পানি থেকে ওকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই।

এ বিষয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সিরাজদিখান সার্কেল) মো. রাজিবুল ইসলাম জানান, ‘আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। উভয় পক্ষের কথা শুনেছি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আপাতত একটি মামলা হবে। যদি ময়নাতদন্তে হত্যার রিপোর্ট পাওয়া যায় তাহলে মামলা চালু হবে এবং আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.