স্বামীর টাকায় ক্যান্সারের চিকিৎসা, সুস্থ হতেই প্রেমিককে নিয়ে উধাও

মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে প্রেমিকের হাত ধরে সন্তানসহ উধাও হয়েছেন এক দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসীর স্ত্রী। এ ঘটনায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। তবে চার মাসেও বাড়ি ফেরেননি এক সন্তানের জননী ওই গৃহবধূ।

পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভোরন্ডা এলাকার দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী মনির বেপারীর স্ত্রী পপি বেগম ২০২০ সালের নভেম্বর মাসে একরাতে তার পরকীয়া প্রেমিক মিরাজকে নিজের ঘরে নিয়ে আসেন। বিষয়টি শ্বশুর-শাশুড়ি ও এলাকাবাসী টের পেলে প্রেমিকসহ তাকে ঘরের ভেতর আটক করে রাখা হয়। এ ঘটনায় বিচার সালিশের জন্য পপিকে তার বাবা-মাকে নিয়ে আসতে বললে এ সুযোগে প্রেমিকসহ তিনি পালিয়ে যান। এরপর প্রায় চারমাস কেটে গেছে। এসময়ে তাকে নানাভাবে ফেরানোর চেষ্টা করেও তাকে বাড়ি ফেরাতে পারেননি শ্বশুর বাড়ির লোকজন।

মনির-পপি দম্পতির জুনায়েদ নামের ৮ বছরের এক ছেলে সন্তান রয়েছে।

প্রবাসী মনিরের মা রিনা বেগম বলেন, ‘পপি বেগম আমার ছেলে মনিরের স্ত্রী। ওর ক্যান্সার হয়েছিল। আমার ছেলে লাখ লাখ টাকা চিকিৎসার জন্য খরচ করেছে। কিন্তু সুস্থ হয়ে প্রায়ই অন্য পুরুষের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলত। প্রায় রাতে পরপুরুষ ঘরে নিয়ে আসত। আমরা না করলে বা বাধা দিলে মিথ্যা মামলার হুমকি দিত। একদিনতো গ্রামবাসী হাতেনাতে ধরেই ফেলেছে বিষয়। এখন আমার নাতির জন্য মনটা অনেক খারাপ লাগে। থানায় অভিযোগ আর বহুবার চেষ্টা করেও তাকে বাড়ি ফেরাতে পারিনি।’

বিষয়টি স্বীকার করে পপির মা পিয়ারা বেগম বলেন, ‘মিরাজ নামের একটি ছেলের পপির সম্পর্ক আছে শুনেছি। ওই ছেলের সাথে চলে গেছে। আমাদের সাথে কোনো যোগাযোগ নেই। ছেলে জুনায়েদকেও নিয়ে গেছে পপি।’

অভিযোগের তদন্তকারী টঙ্গীবাড়ী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সামাদ জানান, সাধারণত এসব অভিযোগের পরপরই ব্যবস্থা নেওয়া হয়। যেহেতু অভিযোগটি কয়েকমাস আগের তাই বর্তমানে সেটি কোন অবস্থায় আছে তা খুজে বের করে দেখে বলতে হবে।

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.