অচেনা মাওয়া ঘাট

স্বপ্ন নয়, পদ্মা সেতু আজকে বাস্তবে পরিণত হয়েছে। আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন হলো বহুল প্রত্যাশিত এই সেতু। ফলে মানুষের পদচারণায় মুখর মাওয়া ঘাটে এখন অনেকটা শুনশান নিরবতা বিরাজ করছে। পুরোপুরি ভিন্ন চেহারায় এমন কতদিন চলবে তাও এখানকার ব্যবসায়ী, লঞ্চ-স্পিডবোট চালকরা কেউ বলতে পারছেন না।

শনিবার (২৫ জুন) মাওয়া ঘাটে ঘুরে দেখা গেছে, ঘাটের আশপাশের সব রেস্টুরেন্ট বন্ধ। অনান্য দোকানপাটও বন্ধ। রেস্টুরেন্টের মালিক কর্মচারীরা সামনে বেঞ্চে বসে অলস সময় পার করছেন।

হোটেল মালিকরা জানান, করোনার লকডাউনের সময় এমন চেহারা ছিলো ঘাটের। এছাড়া এক যুগের হোটেল ব্যবসার সময়ে এমনটা দেখিনি। এইখানে গাড়ির চাপ ছিলো, মানুষেরও চাপ ছিলো। কিন্তু এখন থেকে কেমন পরিস্থিতি হবে এখনও কিছু বুঝি না। আরো এক দুই সপ্তাহ গেলে বোঝা যাবে।

তবে ব্যবসার পরিস্থিতি কোনদিকে যবমাবে তা নিয়ে উদ্বিগ্ন হলেও পদ্মা সেতু হয়ে যাওয়ায় তারা খুশি।

এদিকে লঞ্চ ও স্পিডবোট ঘাটে এসে দেখা গেছে, টার্মিনালের ভেতরে রাখা আছে অসংখ্য স্পিডবোট। আর একটি মাত্র লঞ্চ ঘাটে নোঙর করা আছে।

অন্যদিকে এদিকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য পুলিশ৷, র‌্যাব ও নৌ পুলিশের সদস্যদের প্রহরা লক্ষ্য করা গেছে। তাদের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীও ঘাটে আছেন। যাতে হঠাৎ কোনো বিপদ হলে এগিয়ে যেতে পারেন।

সোনালীনিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.