ভোটার তালিকা হালনাগাদের লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে মারামারি, আহত ৩

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়ন পরিষদে ভোটার তালিকা হালনাগাদের লাইনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে মারামারি ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (২৩ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বিকেল তিনটা পর্যন্ত লতব্দী ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ৩ দফায় এই মারামারির ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় তিনজন আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন- সিরাজদিখান উপজেলা ইয়ুথ ফাউন্ডেশনের সভাপতি সেকান্দার আলী (৪২), লতব্দী ইউপি সদস্য শরীফ মাহমুদ (৫০) ও নয়াগাঁও গ্রামের হালিম মিয়ার ছেলে তাসলিম (২২)।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সকাল থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদের জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিস থেকে কর্মকর্তারা আসেন। সেখানে ভোটার তালিকার লাইনে দাঁড়ানোকে কেন্দ্র করে মাহমুদ ও কামরুল নামে দুই ব্যক্তির বাগবিতণ্ডা হয়। সেই বাগবিতণ্ডাকে কেন্দ্র করে ইউনিয়ন পরিষদে প্রথম দফায় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তসলিমকে মারধর করা হয়।

পরবর্তীতে দুপুর দেড়টার দিকে সেকান্দার আলী শরীফ মাহমুদকে মারধর করেন। এতে সেকান্দার আলীর মাথা ফেটে গেলে তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় এবং তাসলিমের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ক্ষিপ্ত হয়ে ইউনিয়ন পরিষদে এসে ভাঙচুর চালায়।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শাহিন ইসলাম চৌধুরী বলেন, চেয়ারম্যানের সঙ্গে ঝামেলাকে কেন্দ্র করে আমাদের রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যাঘাত ঘটিয়েছে। আমাদের যাবতীয় ইন্সট্রুমেন্ট অক্ষত রয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে লতব্দী ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজ ফজলুল হককে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম মিজানুল হক বলেন, লতব্দী ইউনিয়ন পরিষদে উপজেলা নির্বাচন অফিসার রুটিন মাফিক ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম করছিলেন। সেখানে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে আসা নতুন ভোটারদের মাঝে বাগবিতণ্ডার এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেধে যায়। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে, এখনো কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরাফাত রায়হান সাকিব/এফএ/জেআইএম

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.