সিরাজদিখানে ছাত্রলীগ নেতা আসিফ হত্যার নেপথ্যে…

মোজাম্মেল হোসেন সজল: ওসির পক্ষপাতিত্ব ও ঘুষ বাণিজ্যে সিরাজদিখানের কোলা গ্রামের ইউনিয়ন ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আসিফ হাসানের (২১) মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসা দেয়া হলে আসিফকে বাঁচানো যেত বলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও নিহতের পরিবারের স্বজনের দাবি। এ ঘটনায় ১৯শে এপ্রিল নিহতের বাবা হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে ১২ জনের নামে হত্যা মামলা করেছেন। কিন্তু আসামিদের গ্রেপ্তারের কোন অগ্রগতি নেই।

গত ১২ ই এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টায় কোলা গ্রামের ব্রিজের কাছে বিএনপি থেকে সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদেয়া জয়ী ও আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদের বহিস্কৃত সদস্য পরাজিত প্রার্থীর গ্রুপের মধ্যে সহিংসতায় গুরুতর আহত হয়ে ১৭ই এপ্রিল আসিফ মুন্সীগঞ্জ কারাগারে অসুস্থ হয়ে সকাল ৭টায় আসিফ মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে মারা যায়। এরআগে ১২ই এপ্রিল রাত ১১ টা ১০ মিনিটে, পরদিন সকাল ৯টা ৪০মিনিটে সিরাজদিখানের ইছাপুরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও একইদিন বেলা ১১টা ৫মিনিটে আসিফকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আসিফকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়ে দেয় পুলিশ। ঘটনা ঘটনার পৌনে তিনঘন্টার মধ্যে রাত ১২টা ৫ মিনিটে চুম্বকগতিতে আসিফের বিরুদ্ধে মামলা নথিভুক্ত করেন ওসি। এদিকে, আসিফ হত্যার পর মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ আসিফের বাড়ি গিয়ে স্বজনদের সাথে দেখা করে শোক সন্তপ্ত পরিবারটিকে সমবেদনা জানিয়েছেন।

ঢাকার সিদ্ধেশ্বরী কলেজের মাস্টার্সে অধ্যয়নরত আসিফের একমাত্র বড় বোন নূসরাত জাহান তনিমা জানান, তার একমাত্র ছোট ভাই আসিফকে ঘটনার দিন রাতে কোলা ব্রিজের কাছে প্রতিপক্ষের ইয়ামিন ও তার লোকজন মোটর সাইকেল থেকে ধরে নিয়ে মারধর করে একটি বাগানে নিয়ে অচেতন করে ফেলে। এ সময় আসিফ বার বাব বমি করছিলো।

সিরাজদিখান উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জহিরুল ইসলাম লিটু জানান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদ ও সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেনকে বিপুল টাকা দিয়ে গেল ইউপি নির্বাচনে ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মীর লিয়াকত আলী আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে নৌকা মার্কায় জয়লাভ করে। জয়ের পর লিয়াকত ও তার লোকজন কোলা ইউপি আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শরীফ, সাধারণ সম্পাদক তারনসহ ১২ ই এপ্রিল রাতে বাসায় ফেরার পথে ইয়ামিন শেখকে রিকশা থেকে নামিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় আশপাশের লোকজন ছুটে এসে আসিফকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। নির্বাচনী জেরেই এ ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী রিকশাচালক আমির হোসেন জানালেন, ঘটনার দিন রাতে সিংপাড়া বাজার থেকে ১০ টাকা ভাড়ায় নিয়ে যাওয়ার পথে কোলা ব্রিজের কাছেই পৌঁছতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা ২-৩ জন লোক ইয়ামিনকে রিকশা থেকে নামিয়ে ফেলে। এ অবস্থা দেখে সে রিকশা ভাড়া না নিয়েই দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সৈকত হোসেন জানান, গত ২২ শে মার্চের ইউপি নির্বাচনে আসিফ নৌকার নির্বাচন, বিদ্রোহী প্রার্থীর নির্বাচন না করা ও ইয়ামিনকে দল থেকে বহিস্কার করায় ক্ষিপ্ত হয়ে আসিফের ওপর হামলা চালায়। আসিফের উন্নত চিকিৎসা দেয়ার কথা বলা হলেও ওসি তা মানেননি।

কোলা গ্রামের ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার ইসমাইল হোসেন বলেন, ঘটনাস্থলে এসে দেখি আসিফকে একটি বাগানে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। সেখানে আসিফ অচেতন হয়ে পড়ে রয়েছে। এ সময় ইয়ামিনের মা আলেয়া, খালা রুসি আমাকেও মারতে চায়।

সিরাজদিখান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মহিউদ্দিন আহম্মেদের মোবাইলে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি কল গ্রহণ করেনি।

ওসি ইয়াদৌস হাসান
ওসি ইয়ারদৌস হাসান দীর্ঘ বছর ধরে মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন থানায় দারোগা ও পরে ওসির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। ২০০৪ সালে তিনি প্রথম মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় দারোগা হিসেবে এসে ফতুল্লাসহ বিভিন্ন থানা হয়ে ২০১৩ সালের ২৪ শে জুন ওসি (তদন্ত) হিসেবে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় যোগদান করেন ইয়ারদৌস হাসান। এখান থেকে অল্পদিনের ব্যবধানে তিনি পূর্ণাঙ্গ ওসি (ওসি-প্রশাসন) হিসেবে পদোন্নতি নেন। সিরাজদিখান থানার ওসি আবুল বাসারকে সরিয়ে তিনি ২০১৪ সালের ১৭ ই নভেম্বর সিরাজদিখান থানায় ওসি (প্রশাসন) হিসেবে যোগদান করেন। এ সময়ে তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ওঠে। পুলিশের গাড়িতে করে মাদক সরবরাহ, বাদী-বিবাদীর কাছ থেকে বিপুল অর্থ আদায়, সাধারণ মানুষকে নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা নেয়া, অযথা মানুষকে হয়রানির বিস্তর অভিযোগ। সিরাজদিখান এখন মাদকের অভয়ারন্য। প্রতিটি গ্রামে মহল্লায় মাদক বিক্রির ছড়াছড়ি।

ওসি জানান, পরাজিত প্রার্থী নাসির চৌধুরীর ছেলে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী রনি চৌধুরী (২৮)-কে গ্রেপ্তার করার পর ২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আসিফকে সুস্থ মনে করায় নিয়ম অনুযায়ী তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। মাদকের সঙ্গে তার কোন সম্পৃত্ততা ও পুলিশের গাড়িতে করে মাদক বহনের ঘটনা পুরোপুরি অসত্য বলে তিনি দাবি করেন।

নিউজ৬৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.