গজারিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকির হোসেন নানা কারণে সমসাময়িক গজারিয়ায় আলোচিত এক নাম। সম্প্রতিকালে তার বিরুদ্ধে হয়েছে দুর্নীতির মামলা। অভিযোগ উঠেছে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে বালুয়াকান্দি ডাঃ আব্দুল গফফার স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনে পছন্দের প্রার্থীকে অনৈতিক সুবিধা দিয়েছেন তিনি। শুধু তাই নয় অভিযোগ আছে টাকার বিনিময়ে নিষিদ্ধ গাইড বই,প্রাইভেট ও কোচিং চালু রেখেছেন তিনি।

মামলার বাদী মফিজুল আলম জানান, বালুয়াকান্দি ডাঃ আব্দুল গফফার স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনে প্রার্থী ছিলেন তিনি। নিয়ম অনুযায়ী তফসিল ঘোষণার,মনোনয়ন জমা দেন তিনি। যাচাই-বাছাই শেষে ২মার্চ তার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয় । এরপর থেকে গণসংযোগ শুরু করেন তিনি। তবে নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাউকে না জানিয়ে তফসিল বাতিল করে মৌখিকভাবে দ্বীতিয় দফা তফসিল ঘোষণা করে ( ৬,৭ ও ৮মার্চ) শুধু তার পছন্দের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র জমা নেন। এতে করে তিনিসহ আরো কয়েকজন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেননি। ৮ মার্চ রাতে বিভিন্ন পদে একজন করে প্রার্থী থাকায় তাদের বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ফল ঘোষণা নিয়ম থাকলেও রাত ১০টার পর বালুয়াকান্দির এক বাড়ী থেকে ঘোষণা করা হয় ফলাফল। বাদীর দাবী ঐ বাড়ীতেই টাকা লেনদেন করা হয়েছে । তাই দুর্নীতির অভিযোগ এনে মামলা করেছেন তিনি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, জাকির হোসেন গজারিয়া উপজেলায় যোগদানের প্রায় তিন মাস পাড় হলেও এখনো পরিদশর্ন করেননি কোন স্কুল, নিয়মিত আসেন না কর্মস্থলে। এ রিপোর্ট করতে টানা দুই স¤পাহ নজরদারি করা হয় গজারিয়া উপজেলায়। দুই সপ্তাহে সরকারি ছুটির দিন ব্যতীত চার দিন কর্মস্থলে অনুপস্থিত ছিলেন জাকির হোসেন। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ,প্রতি সপ্তাহে নিজের ইচ্ছে মত একাধিক দিন ছুটি কাটান তিনি। গুরুত্বপূর্ণ কাজে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে আসা লোকের পান না কাক্সিক্ষত সেবা। অভিযোগ আছে টাকার বিনিময় নিষিদ্ধ গাইড বই,প্রাইভেট ও কোচিং চালু রেখেছেন তিনি। এই বিষয় নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলেও অদৃশ্য কারণে জাকির হোসেন তা বন্ধে নেননি কোন পদক্ষেপ।

এবিষয়ে গজারিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকির হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিষয়টি নিয়ে মামলা হয়েছে যা বলার কোর্টে বলব সাংবাদিকদের কাছে নয়।

আলোচিত সমালোচিত মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকির হোসেন এই বছেরর শুরুতে গজারিয়া উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি ঢাকা ধামরাই উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ছিলেন,সেখানে তার রিরুদ্ধে ছিল দুর্নীতির সীমাহীন অভিযোগ। তাকে সড়াতে বাধ্য হয়ে পথে নামতে হয় অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের। জানা যায়, ধামরাই থাকাকালীন সময়েও তিনি ধামরাই বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনে টাকার বিনিময় তার পছন্দের প্রার্থীকে অনৈতিক সুবিধা দেন। এ ঘটনা জানাজানি হলে মাঠে নামে অভিভাবক ও শিক্ষকরা। তাকে সড়াতে হয় বিক্ষোভ মিছিল,প্রতিবাদ সভা ও মানববন্ধন। তাই তাকে অন্যত্র বদলী করে কর্তৃপক্ষ।

গজারিয়া নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.