ছনিয়া হত্যাকান্ডের ১৭ দিনেও কোন রহস্য খুঁজে পায়নি পুলিশ!

মুন্সিগঞ্জে গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি গ্রামের শহীদউল্লাহ মিয়ার কন্যা মেধাবী ছাত্রী এইচ এস সি পরীক্ষার্থী ছনিয়া হত্যাকান্ডের ১৭ দিনেও কোন রহস্য খুঁজে পায়নি পুলিশ।

ইতোমধ্যে এই হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ২৪ এপ্রিল রাজন ও সিরাজ নামে ২ জনকে আটক করে গজারিয়া থানা পুলিশ। এর মধ্যে ২ জনকে
এই হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। আট দিনের পুলিশ রিমান্ড শেষে গত বুধবার আদালতে প্রেরন করে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আমরা রিমান্ডের দুইজন ছাড়াও অনেক কে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি থানায় ডেকে এনে। তদন্তের স্বার্থে কিছু বলা যাবে না। আমরা আরো একজনকে আটকের চেষ্টা করছি তাকে আটক করতে পারলে অনেক বিষয় পরিস্কার হবে বলে ধারণা করছি।

আলোচিত মেধাবী ছাত্রী ছনিয়া হত্যা মামলার তদন্ত তদারক কর্মকর্তা মুন্সিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) সোহেল রানা জানান, তদন্তে বেশ অগ্রগতি হয়েছে স্বল্পতম সময়ের মধ্যেই আমরা ভালো কিছু করতে পারবো এই মামলায়।

এদিকে মামলার বাদী হাজেরা বেগম মুঠোফোনে জানিয়েছেন, পুলিশ বাহিনীর ব্যাপক তৎপরতা সত্ত্বেও এখনও ছনিয়া হত্যা মামলার তদন্তের কোন অগ্রগতি না হওয়ায় তিনি চরম হতাশ হয়েছেন।

উল্লেখ্য,গত ১৭ এপ্রিল সোমবার মেধাবী ছাত্রী ছনিয়া আক্তার প্রতিদিনের মতো সকালে ঘরের পাশে টিওবয়েলে হাত মুখ ধোয়ার সময় হিংস্র মানুষরূপী হায়েনার দাহ্য পদার্থ ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়।

মুহুর্তেই ছনিয়ার সারা শরীরে আগুন ছড়িয়ে প্রায় ৯০ ভাগ পুড়ে যায়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বার্ন ইউনিটে টানা চার দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে গত ২০শে এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে ছনিয়ার মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে গজারিয়া থানায় ছনিয়ার মা বাদী হয়ে বুধবার রাতে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তকে আসামি করে গজারিয়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৪(১) ধারায় মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর এই হত্যাকান্ডে জড়িত সন্দেহ ভাজন ২জন কে আটক করেছে গজারিয়া থানা পুলিশ।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.