মানুষ মানুষের জন্যে: মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চান জাহাঙ্গির

চেতনা একাত্তর: নিজের খেয়ে বনের মৌষ তাড়ানোর মতো ব্রত নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন মিরকাদিম পৌর সভাস্থিত রামগোপালপুর গ্রামের বাসিন্ধা কামরুল ইসলাম জাহাঙ্গির, দীর্ঘদিন যাবত তিনি জনসেবায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন, নিম্ম মধ্যবিত্ত পরিবারভুক্ত কামরুল ইসলাম জাহাঙ্গির নিজ পরিবারের শত অভাব অনটনের মধ্যও মানুষের পাশে দাড়ান, কিছু করতে যথাসাধ্য চেষ্টা করেন, ফলের মৌসুমে দরিদ্র মানুষের মাঝে আম,কাঠাল,আনারশ,পেয়ারা বিতরন করেন। কোন উৎসব, বিশেষ দিনে দরিদ্রদের মাঝে খিচরী, বিরয়ানী নিজে রান্না করে নিজে ঘরে ঘরে দিয়ে আসেন, তাছাড়া বিগদগ্রস্থ লোকজনের চিকিৎসা, বিবাহ, লেখাপড়ার বিষয় পাশে দাড়ান, নানাভাবে সহায়তা প্রদান করেন। নিজ এলাকার কোন লোক মারা গেলে মৃত ব্যাক্তির দাফন কাফন বিষয় শোক সন্তাপ পরিবারের পাশে থাকেন, এক কথায় বলা চলে মানুষের সেবা করাটাই কামরুলের নেশা।

প্রতি কোরবানীর ঈদে নিজে রিস্কা ভেন নিয়ে কোরবানীর স্থানে ব্লিসিং পাউডার ছড়িয়ে দেন, নিজ পৌর এলাকা ছাড়িয়ে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নেও তাকে ব্লিসিং পাউডার ছিটাতে দেখা গেছে, এমন কি মুন্সিগঞ্জ শহরও তার এই পরিছন্নতা অভিযান থেকে বাদ যায়নি।

বর্তমান সময় মিরকাদিম পৌর সভায় জাতীয় পরিচয় পত্র বিতরন কার্যক্রম চলছে, আমার কার্ড সংগ্রহ করতে পৌর সভায় গিয়ে দেখলাম প্রচন্ড রৌদ্র ও গরমে অতিষ্ট শত শত নারী পুরুষদের নিজের হাতে তৈরী গুড়ের শরবত নিজেই পান করাচ্ছেন।

যেখানে সমাজের রন্দ্রে রন্দ্রে অনিয়ম,দুর্নীতি,সুবিধাভোগী ও স্বার্থপরতায় আচ্ছন্ন, নিজেদের আখের গোছাতে ব্যাস্ত, সেখানে কামরুলেন মতো – নিজেরটা খেয়ে বনের মৌষ তাড়ানোর মতো লোকের সংখ্যা আমাদের সমাজে খুবই বিরল,আমি মনে করি আমাদের সমাজে কামরুলের মতো লোকের সংখ্যা যত বাড়বে সমাজ তত উপকৃত হবে।

জেলা প্রশাসন থেকে শুরু করে বিভিন্ন সংস্থা সমাজ সেবায় জড়িতদের বিভিন্নভাবে পুরুস্কৃত করে থাকেন, যারা পুরুস্কার গ্রহন করেন তাদের অনেকের গ্রহন যোগ্যতা ও পুরুস্কার পাওয়ার বিষয় প্রশ্নবোধক চিহৃ থেকেই যায়।

যাই হোক আগামীতে কামরুল ইসলাম জাহাঙ্গিরকে কোন সংস্থা কর্তৃক সমাজ সেবায় অবদান রাখার নিমিত্তে পুরুস্কার প্রদানের মাধ্যমে মুল্যায়ন করা হলে পুরুস্কারটি যথাযথভাবে দেওয়া হয়েছে বলে আমি মনে করবো। এতে করে সমাজ সেবার প্রতি মানুষের উৎসাহ বাড়বে বৈ কমবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.