পাঠক সংখ্যা

  • 6,950 জন

বিভাগ অনুযায়ী…

পুরনো খবর…

স্কুল ছাত্রী সেতু মন্ডল অপহরণ, ধর্ষণ ও আত্মহত্যা প্ররোচনার প্রধান আসামী গ্রেপ্তার

সজলের আঙ্গুলের রক্তের সিদুরে মন্দিরে সেতুর বিয়ে: সাবেক দুই প্রেমিক জেল হাজতে
নাছির উদ্দীন: সিরাজদিখানে সেতু মন্ডল অপহরণ, ধর্ষণ ও আত্মহত্যার প্রধান আসামী হযরত আলী ওরফে সজলকে (২৭) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত শনিবার ভোরে উপজেলার কুচিয়ামোড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করলে সজল দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারা জবান বন্দী দিলে আদালত তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। সজল বরিশালের মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার উনানিয়া গ্রামের আ. মজিদ সরদারের ছেলে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১০ এপ্রিল সেতু মন্ডল বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার পথে নিখোজ হয় । নিখোজের আগে সেতু মন্ডলের সাথে সজল একাদিক বার মোবাইলে যোগাযোগ করে। সজল কেরানিগঞ্জ থানা এলাকায় থেকে এসে উপজেলার গোয়াল খালী এলাকা থেকে সেতু মন্ডলকে সাথে করে নিয়ে যায় ঢাকা শাখারী বাজার একটি মন্দিরে। যার যার ধর্ম সে সে পালন করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে হাতের আংগুলের রক্ত দিয়ে সিথিতে সিদুর পরিয়ে দেয় সজল। সজলের বাড়ী যাওয়ার উদ্দেশ্যে রাতেই ঢাকা থেকে বরিশাল লঞ্চে কেবিনে করে যাওয়ার পথে একাধিক বার সেতুর সাথে শারীরিক সর্ম্পক হয়। বাড়ি না গিয়ে বরিশাল থেকে ভোরে ঢাকার পথে আসার সময় আবার তাদের মধ্যে একাধিক বার শারীরিক সর্ম্পক হয়। ১১ এপ্রিল সকালে কেরানিগঞ্জে গোলাম বাজার এলাকায় সেতুকে রেখে পালিয়ে যায় সজল। গোলাম বাজার পুলিশ ফারির মাধ্যমে সেতু উদ্ধার হয়ে রাতে বাড়ি ফিরে যায়। ১৭ এপ্রিলে সেত মন্ডল আতœহত্যা করলে সেতু মা বাদী হয়ে সোহেল কে প্রধান আসমীসহ অজ্ঞাত আরো ২জনকে আসামী করে সিরাজদিখান থানায় মামলা দায়ের করে। এলাকাবাসী জানায় সোহেল ও পলাশের সাথে সেতুর প্রেমের সর্ম্পক ছিল।

সিরাজদিখান থানার ওসি ফরিদ উদ্দিন জানান, ইতি পূর্বে আমরা সোহেল এবং পলাশকে আটক করেছি কিন্তু ডিজিটাল প্রযুক্তিতে আমরা মূল আসামী হযরত আলী ওরফে সজলকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। সোহেলকে সেতু মন্ডলের মা সজল দাবী করেন কিন্তু এটা সঠিক না। সেতু যখন বিয়ে করেন তখন বলেন যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে আর হযরত আলীর নাম সজল রাখা হয়। সেতু তার মাকে এই সজলের নামই বলে।

উল্লেখ্য গত ১০ এপ্রিল সেতু মন্ডল বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার পথে নিখোজ হয় । ১১ এপ্রিল সকালে কেরানিগঞ্জে গোলাম বাজার পুলিশ ফারির মাধ্যমে সেতু উদ্ধার হয়ে রাতে বাড়ি ফিরে যায়। ১৭ এপ্রিল সকালে গলায় ফাস দিয়ে আতœহত্যার চেষ্টা করে ঢাকা মিডফোট হাসপাতালে যাওয়ার পথে সে মারা যায়। সাবেক প্রেমিক সোহেল ও পলাশ গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে জেল হাজতে রয়েছে।#

Leave a Reply

You can use these HTML tags

<a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <s> <strike> <strong>

  

  

  

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.