সিরাজদিখানে করোনা পরীক্ষার ব্যবস্থা না থাকায় জনমনে আতঙ্ক

সিরাজদিখানে ২ লাখ ৯০ হাজার মানুষের স্বাস্থ্যসেবার একমাত্র ৫০শয্যার হাসপাতালে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস মোকাবেলার কোনো উপকরন না থাকায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এমনকি কর্মরত চিকিৎসক-নার্স ও অন্য স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য পর্যাপ্ত মাস্ক ও (পিপিই) নেই। ভয়ে ভয়ে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ও র্নাসরা ।

এদিকে হাসপাতালে আসা রোগীদের সুরক্ষার জন্য পানি ও সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা ও হাতে জীবাণানুনাশক স্প্রে করার পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই। এতে যে কোনো সময় কোনো করোনা আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে ডাক্তার-নার্স ও সেবা নিতে আসা রোগীদের মধ্যে ভাইরাসটি ছড়িয়ে যেতে পারে বলে আশংকা করেছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক ও স্থানীয়রা।

পর্যাপ্ত জীবাণুনাশক স্প্রে নেই বলে স্বীকার করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডাঃ বদিউজ্জামান ।

জানা গেছে, স্বাস্থ্য কমপ্লে­ক্সে আইসিও বেড, নেই কোনো ভেন্টিলেটর ও পরীক্ষাগার। এ হাসপাতালে নামমাত্র ৬টি বেডের একটি আইসোলেশন ওর্য়াড করা হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ সরকারি নিদের্শ মোতাবেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আইসোলেশন কক্ষে ৬টি বেড ছাড়া কিছুই নেই। এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য কোনো কীট হাসপাতালে আসেনি।

এদিকে এ উপজেলায় ইতালী, অষ্ট্রেলিয়া, স্পেন, সিংগাপুর, আরব আমিরাতসহ বিভিন্ন দেশ থেকে প্রায় সহশ্রাধীক প্রবাসীরা আসায় তাদের মধ্যে করোনা ভাইরাস আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে পারেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সরকার এখন পর্যন্ত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা ভাইরাস পরীক্ষার কীট সরবরাহ করতে না পারায় উপজেলার সাধারন মানুষের মাঝে আতংক বিরাজ করছে।

এ ব্যাপারে সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে­ক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডাঃ বদিউজ্জামান জানান, করোনা পরীক্ষার উপকরন পাওয়ার জন্য স্থানীয় এমপি এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে। অতিশীঘ্রই করোনা মোকাবেলার পরীক্ষার উপকরন আসবেন বলে জানান।

নিউজজি/ এসআই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.