টঙ্গীবাড়ীতে ৫ গ্রাম পুলিশকে মারধর করে জাটকা ছিনিয়ে নেওয়ায় ৩ এএসআই ও কনষ্টেবল ক্লোজড

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় গ্রাম পুলিশের ৫ সদস্যকে মারধর করে জাটকা বোঝাই ২টি পিকাপ ১টি সিএনজি, ১টি আটো গাড়ি ও ১টি নসিমন ছাড়িয়ে নিয়ে গেছে তদন্ত কেন্দ্রের ৩ পুলিশ। বুধবার ভোর রাত ৫ টায় উপজেলার কাঠাদিয়া শিমুলিয়া ঈদগাঁ মাঠের সামনে এ ঘটনা ঘটে। গ্রাম পুলিশেরা বিষয়টি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জগলুল হালদার ভুতুকে জানালে ঘটনাস্থলে লোক পাঠিয়ে ১টি নসিমন সহ ৬০ কেজি জাটকা উদ্ধার করে টঙ্গীবাড়ী থানা নিয়ে আসে।

পরে দুপুরের দিকে গ্রাম পুলিশ সদস্যদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দিঘীরপাড় তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই ও দুই কনষ্টেবরকে ক্লোজড করা হয়েছে। গ্রাম পুলিশের সদস্যরা জানান, করোনা আতংকের কারনে টঙ্গীবাড়ী-দিঘীরপাড় সড়কে উপজেলার কাঠাদিয়া-শিমুলিয়া ইউনিয়নের কাঠাদিয়া ঈদ গাঁ মাঠের সামনে চেকপোষ্ট বসায় উপজেলা প্রশাসন। সেখানে দায়িত্বরত অবস্থায় গ্রাম পুলিশের সদস্য নবু শেখ, সুজন শেখ, শহীদ মাল, আব্দুর রশিদ ও আব্দুর রহমান জাটকা বোঝাই ৫ টি গাড়ী আটক করে। এর ১০ মিনিট পরই দুইজন কনষ্টেবলসহ দিঘীরপাড় তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই মো. তাইজুদ্দিন সেখানে ছুটে আসেন। এ সময় গ্রাম পুলিশের সদস্যদের মারধর করে জাটকা বোঝাই নসিমন গাড়ী গুলো ছাড়িয়ে নিয়ে যান এএসআই ও কনস্টেবলরা।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জগলুল হালদার ভুতু জানান- দিঘিরপাড় দিয়ে জাটকা মাছ সহ বিভিন্ন অবৈধ জিনিস পাচার হয়। বিষয়টি উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে বহুবার জানানো হয়েছে। এর সাথে জরিত রয়েছে দিঘিরপাড় তদন্ত কেন্দ্রের অফিসার ইনচার্জ মো: জিল্লুর রহমান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সিরাজদিখান সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার রাজিবুল ইসলাম জানান, গ্রাম পুলিশের সদস্যরা লিখিত ভাবে টঙ্গীবাড়ী থানায় অভিযোগ করলে দিঘীরপাড় তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই তাইজুদ্দিন, কনষ্টেবল দীপু মল্লিক ও কনষ্টেবল মো. মহসিনকে ক্লোজড করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.