সিরাজদিখানে মাছ চোর ধরে মার খেলো মাছ চাষী

নাছির উদ্দিন: সিরাজদিখানে চাষের পুকুরে মাছ ধরে নিয়ে যাবার সময়ে বাধা দেওয়া একটি পরিবার বিপদে পরার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের লতব্দী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানয়ী ও ঘটনা সূত্রে জানাযায়, গত ১৬ এপ্রিল সকাল বেলা উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের লতব্দী গ্রামের মৃত আজিজ বেপারির ছেলে মনির হোসেন বেপারীর চাষকৃত মাছ চুরি করে মজিবুর রহমান বাচ্চুর ছেলে মো. জাকির হোসেন নেতৃত্বে তার ভাই আমির হোসেন একই গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে বিপ্লর (৩৫), আব্দুর মীর সালামের ছেলে শাহ আলম (৩৫) কলি (৩৫) সহ ৬ থেকে ৭ জন। এসময় মনির হোসেনর ভাতিজা মো. ফরহাদ হোসেন (২০) ও সেলিম দেওয়ানের ছেলে শান্ত বাধা দিলে তাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে যায়। বাধা উপেক্ষা করে মাছ ধরতে থাকলে তারা আবারো বাধা দিলে এক সময়ে চোরেরা তাদের কে মারধর করে। বিষয়টি পুকুরের মালিক মনির হোসেন বেপারীকে জানালে মনির এসে দেখেন তারা সকলে মিলে পুকুরে মাছ ধরছে। নিজের সম্পদের চুরি দেখে বাধা দিলে পুকুরের মালিককেও হুমকি ধমকি দেয়।

কিন্তু তারা জোড়পূবক মাছ ধররে এবং তাকে মারতে তেরে জান। এসময় বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে ঘটনা স্থলে জড় হলে মাছ চোরদের হাতে নাতে ধরে ফেলে। পরে ক্ষুদ্ধ লোকজান চোরদেরকে হালকা মারধর করে। মনির হোসেনের ছোট ভাই মো. মুক্তর হোসেন (৪০) মাছ চোরদেরকে ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসীর হাত থেকে ছাড়িয়ে বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়। এ ঘটনায় স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. ইকবাল হোসেন খান উভয় পক্ষের সম্মতিতে ঘটনার দিন বিকাল ৫ টায় বিচারের সময় নির্ধারণ করে। বিচারের আগে দুপুর ৩ টায় জাকির ও তার সহযোগীরা দেলোয়ার হোসেনর ছেলে ফরহাদ হোসেন দোকানে সামনে পেয়ে বেধর মারধর করে। খবর পেয়ে মুক্তর হোসেন এগিয়ে আসলে দেশিয় অস্ত্র দিয়ে তাকে গুরতর আহত করে। পাশের বাড়ীর হালিমা (৩৮) নামক এক মহিলার হাত ভেঙ্গে যায়। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এবিষয়ে অভিযুক্ত জাকির হোসেন বলেন, আমার তালই এর পুকুর আমর ভাইয়েরা ঢাকা থেকে এসে সখের বসত মাছ ধরতে গিয়েছিল এসময় আমার তালই এসে বাধা প্রদান করে আর এলাকার কিছু ছোট ছেলে পেলে বাজে ব্যাবহার করলে একটা দন্দের সৃষ্টি হয় এবং আমাদেরকে মারধর করে।

সিরাজদিখান থানার ওসি মো. ফরিদ উদ্দিন জানান, এঘটনায় উভয় পক্ষই অভিযোগ করেছ ঘটনার সত্যতা যাচাই করে আইগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.