মিরকাদিমে বেসরকারি একটি হাসপাতাল লক ডাউন

হাসপাতালের নার্সের শরীরে করোনা শনাক্ত হওয়ায় মিরকাদিম পৌরমেয়র ও ডাক্তার লাবনীর মালিকানাধীন ফাতেমা জেনারেল হাসপাতলটি লক ডাউন করেছে সদর উপজেলা প্রশাসন। সোমবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ মেজবাহ উল সাবেরিন হাসপাতালটি লক ডাউন করেন।

এ সময় হাসপাতালটিতে কর্মরত সকল স্টাপকে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তি নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত হাসপাতালটি বন্ধ থাকবে বলে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানায়, মিরকাদিম পৌর মেয়ের শহিদুল ইসলাম শাহীন ও ডাক্তার লাবনীর মালিকানাধীন ফাতেমা জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত একজন নার্স (২৪) এর সোমবার করোনা পজেটিভ ধরা পরেছে। এর কয়েকদিন আগে তার সোয়াব সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগ। সেই নারী নার্স (২৪) করোনা উপসর্গ নিয়ে দুইদিন আগে হাসপাতালটিতে ঘুরে যাওয়ার ফলে পুরো হাসপাতালটি লক ডাউন করা হয়েছে। হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে হাসপাতালটির সকল কর্মকর্তা কর্মচারীকে।

হাসপাতালটির মালিক মিরকাদিম পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহীন জানান, হাসপাতালের এক নারী স্টাফ নার্স আক্রান্তের খবর পাওয়ার সাথে সাথে হাসপাতালের সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তবে আক্রান্ত ওই নারী স্টাফ ১৫ দিন যাবত ছুটিতে ছিলেন গত দুই দিন আগে তিনি হাসপাতালে বেতন নিতে আসে। তাই ঝুঁকি এড়াতে হাসপাতালের কার্যক্রম আপদত বন্ধ রাখা হয়েছে।

লকডাউনের বিষয়টি নিশ্চিত করে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ম্যাজিষ্ট্রেট শেখ মেজবাহ উল সাবেরিন বলেন, বেসরকারি হাসপাতালটির একজন নার্সের করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে। তাই ঝুঁকি এড়াতে আপাদত হাসপাতলটি লকডাউন করা হয়েছে এবং তাদের সকল স্টাফকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে। পরবর্তি নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত হাসপাতলটি লক ডাউনে থাকবে বলেও জানান তিনি।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.