শ্রীনগরে করোনা উপসর্গ নিয়ে আক্রান্ত রোগীর ভাতিজার মৃত্যু, উপজেলায় নতুন আক্রান্ত ১জন

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগর উপজেলার সমসাবাদ এলাকায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত এক যুবকের ২ বছরের ভাতিজা করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে। গত ২ মে সমসাবাদ গ্রামের ওই যুবকের করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়। মঙ্গলবার বেলা ১২ টার দিকে শ্রীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সৈয়দ রেজাউল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, শিশুটি করোন ভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মারা যায়। তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। উপজেলা ইসলামিক ফাউন্ডেশন সতর্কতার সাথে তার দাফন সম্পন্ন করেছে।

আপরদিকে উপজেলার বেজগাও গ্রামের ৫০ বছরের এক নারীর নমুনায় করোনা ভাইরাস সনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে উপজেলায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাড়ালো ২৩,তাদের মধ্যে ১জন সুস্থ্য হয়েছেন ও ১জন মারা গেছেন।

ডাঃ রেজাউল ইসলাম জানান, এর আগে আক্রান্ত ২২ জনের মধ্যে ভাগ্যকূল ইউনিয়নের কামারগাও গ্রামের পঞ্চাশোর্ধ ১ পুরুষ, ৩জন উপজেলার গোল্ডেন সিটি এলাকার ভাড়াটিয়া স্বামী-স্ত্রীর ও তাদের ৯ বছর বয়সী মেয়ে। ষোলঘর সেনপাড়ার ১ নারী,সমসাবাদের ১ যুবক ও পাকিরা এলাকার একই পরিবারের ৩ জন। সিংপাড়া এলাকার ২ জন,দেউলভোগ এলাকার ২জন, আটপাড়া এলাকার ১ জন, কবুতরখোলা এলাকায় ১ জন ও মাইজপাড়া এলাকায় ১জন পুরুষ। আক্রান্ত আরো ১জন হলেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্যকর্মী। তাদের মধ্যে মাইজপাড়া গ্রামের আক্রান্ত বৃদ্ধ গত বৃহস্পতিবার মারা যান। মৃত্যুর পর তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হলে তা পজেটিভ আসে।

বাকী ৫জন পাটাভোগ ইউনিয়নের বেজগাও গ্রামের স্বামী-স্ত্রী ও ১ যুবক ও ফৈনপুর গ্রামের শশুর এবং পুত্রবধু। তাদের মধ্যে ফৈনপুর গ্রামের পুত্রবধুর শশুর কুয়েত মৈত্রি হাসপাতাল থেকে সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

ডাঃ রেজাউল ইসলাম আরো বলেন, কমিউনিটি ট্রান্সমিশনের কারনে হঠাৎ করে রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। কারো মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বা নিকটস্থ স্বাস্থ্য সহকারীর সাথে যোগাযোগ করার জন্য তিনি পরামর্শ দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.