ঢাকা মাওয়া হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে রোগী হয়রানি ও চাঁদাবাজির অভিযোগ

নাছির উদ্দিন: মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে ঢাকা মাওয়া হাইওয়ে হাসারা থানা পুলিশের বিরুদ্ধে রুগী হয়রানির ও চাঁদাবাজি অভিযোগ উঠেছে। গতকাল বুধবার ঢাকা মাওয়া হাইওয়ের কুচিয়ামরা এলাকা থেকে কয়েকেটি সি এন জি আটক করেন এ এস আই রফিক । ভুক্তভোগী ফজিলা বেগম বলেন , কোন যানবাহন না থাকায় অনেক টা বাধ্য হয়েই ঢাকার ডেমরা থেকে রোগি নিয়ে আমাদের নিজস্ব সিএজি নিয়ে আশী। টোল ঘরের সামনে আসলে স্যার আমাদের নামতে বলেন আমরা তাকে অনুরোধ করে বলি আমার ছেলের বৌ টা ডেলিভারির রোগি নিরুপায় হয়ে আমাদের ব্যক্তিগত সিএনজি নিয়ে এসেছি আমাদের ছেরে দেন কিন্তু সে আমাদের কোন কথা না সুনে আমাদের কে নামিয়ে দেয় এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালজ করে আমাদে কোন গাড়ির ব্যাবস্থাও করে দেয়নি আমি বল্লাম এখন আমার ছেলে বৌটাকে নিয়ে আমরা কিভাবে যাব সে বলে হেটে যাও। আমরা অনেক বিপদে আছি বৌ টাকে হাসপাতালে নিতে পারছি না। দেশে কোন বিচার নাই মানবতা নাই। ভুক্তভোগী ফয়সাল ফরাজী বলেন, আমি কুচিয়ামোরা হাইওয়ের পাশের নিচের রাস্থায় ছিলাম আমাকে ডেকে এনে গালিদিয়ে বলে গারি থেকে নাম, আমি নামার পরে মার ধর করে গাড়ি থানায় নিয়ে আসতে চাইলে আমি রফিক স্যারকে অনুরোধ করলে সে আমার বুকে ও পিছনে লাথি মারে আর আমার সাথে থাকা একজন ড্রাইভরকেও লাথি মারে আমি বলি স্যার গাড়িটা নিয়েন না সে আমার কাছে ১০হাজার টাকা দাবি করেন আমি বলি আমার কাছে তো এতো টাকা নাই তাই আমার গারিটি থানায় আটক করেছে।

এ বিষয়ে এস আই রফিক জানান, আমার উপর আনিত আভিযোগটি সমপূর্ণ মিথ্যা। তারা আমার কাছে গাড়ি ছাড়াতে এসছিলো আমি তাদের বলে দিয়েছি এস পি স্যার বরাবর আবেদন করতে।

এবিষয়ে হাসাড়া হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচর্জ আব্দুল বাসেদ বলেন, মহিলাটি যে সকল অভিযোগ করেছে তা সম্পূর্ন মিথ্যা। সিএসজি টি হাইওয়ের উপর দিয়ে আসছিল তাই গাড়িটি আটক করা হয় আর গড়িটিতে কোন রোগি ছিলনা শুধু মহিলার কিছু আত্তিয় স্বজন ছিল এবং মহিলা গাড়ি ছেড়ে দেয়ার জন্য অযাথাই আমাদের উপর চাপ প্রয়োগ করছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.