ফুল দিয়ে বরণ করা পদ্মা সেতুর সেই ক্রেন ফিরে গেলো

পদ্মা সেতু নির্মাণে ব্যবহৃত প্রায় ১২০টি ক্রেনের মধ্যে তিনটি অনেক বড়। সেগুলো হলো– তিয়ান-ই, রুইয়াঙ-৫ ও ডাকিও। ভার বহনে তিয়ান-ইর ক্ষমতা তিন হাজার ৬০০ টন এবং অপর দুটির ক্ষমতা এক হাজার টন। তিনটির মধ্যে পদ্মা সেতুর কন্সট্রাকশন সাইটে প্রথম এসেছিল রুইয়াঙ-৫। এই ক্রেনটি প্রকল্প এলাকায় আসার পর প্রকৌশলীরা ফুল দিয়ে বরণ করেছিলেন। কাজ শেষ হওয়ায় বুধবার (১৩ মে) এটি আবার চীনের উদ্দেশে রওনা হয়েছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প ব্যবস্থাপক দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের এ খবর নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, ‘এ ভাসমান ক্রেনটির লিফটিং ক্ষমতা এক হাজার টন (২০ টন ওজনের ৫০টি ট্রাক একবারে তুলে ধরতে পারে, তাও আবার পানিতে) এবং এটি ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে যেকোনও দিকে কাজ করতে পারে। মূল সেতুর এক একটি পাইলের ওজন ছিল ৫১৪ টন। এটি মূল সেতু এবং ৪০০ কেভিএ বিদ্যুৎ লাইনের পাইল ড্রাইভিংয়ের সময় পাইল লিফটিং ও পজিশনিংয়ের কাজ করতো। এ ক্রেনের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো, এর ওপরে আরও দুটি ৫০ টন ও ১০০ টন ক্ষমতার ক্রেন রয়েছে, যা দিয়ে তার নিজেরসহ অনেক কাজ করা যায়।’

তিনি আরও জানান, সেতুর ৩০তম স্প্যান এ মাসের শেষের দিকে বসবে। রুইয়াঙ-৫ ক্রেনটি ৩০তম স্প্যানের লিফটিং ক্রেন পিয়ার-২৭-এর ওপর উঠিয়ে দিয়েই এ প্রকল্পের কাজ শেষ করলো। বুধবার ভাসমান ক্রেন রুইয়াঙ-৫ মাওয়া ছেড়ে চট্টগ্রাম হয়ে নিজ দেশ চীনের উদ্দেশে রওনা দিল। গতকালই প্রকল্প থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.