বন্ধ ফেরি তবুও ঈদ করতে যেতেই হবে বাড়ি

সামাজিক দূরত্বের তোয়াক্কা না করে ঘাটের পাশে অবস্থান নিয়েছেন। রোজা রেখে দীর্ঘপথ পায়ে হেঁটে ঘাটের দিকে আসছেন আরও অনেকে
রাজধানী থেকে দক্ষিণবঙ্গের ২১টি জেলার অন্যতম প্রবেশদ্বার মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে সোমবার (১৮ মে) বিকেল ৩টা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবুও ফেরি পার হয়ে গন্তব্যে যাওয়ার আশায় মঙ্গলবার ঘাটে অপেক্ষমান অন্তত ৫ হাজার মানুষ।

এই নৌরুটের শিমুলিয়া প্রান্তের সবগুলো ঘাটেই পরিবার-পরিজন নিয়ে ঈদ করতে বাড়ি যাওয়ার জন্য ফেরির আশায় বসে আছেন তারা।

এসব যাত্রীরা বলছেন, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে রাজধানীর বাসা ছেড়ে দিয়েছেন, কর্মস্থলও বন্ধ। এমন পরিস্থিতিতে গ্রামে ফিরতে না পেরে বিপাকে তারা। তাই সামাজিক দূরত্বের তোয়াক্কা না করে ঘাটের পাশে অবস্থান নিয়েছেন। ঈদ উপলক্ষে বাড়ি যেতে রোজা রেখে দীর্ঘপথ পায়ে হেঁটে ঘাটের দিকে আসছেন আরও অনেকে।

এদিকে, পারাপারের অপেক্ষায় শিমুলিয়া ঘাটের আশেপাশে অবস্থান করছে অসংখ্য যানবাহন। সোমবার সকাল থেকে ঘাটে বসে আছে দুই শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক। ঘাটের আশেপাশের এক্সপ্রেসওয়েতেও অপেক্ষমান রয়েছে অসংখ্য যানবাহন।

দুর্ভোগের কথা তুলে ধরে অপেক্ষমান যাত্রীরা জানান, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে তারা খুব কষ্ট করে শিমুলিয়া ঘাটে এসেছেন। খেয়ে, না খেয়ে খুব কষ্ট করে এখানে অবস্থান করছেন তারা।

আরও পড়ুন- প্রাণপ্রিয় সন্তানের ঝুঁকির কথাও ভাবেননি তারা (ভিডিও)

সরেজমিনে দেখা গেছে, সকাল ৯টা থেকে শিমুলিয়া ঘাটে অবস্থান করছে “ফেরি কর্ণফুলি”। ঈদযাত্রীরা ফেরিটিতে অবস্থান নিলেও সেটি ছাড়া হচ্ছে না।

মাওয়া ট্রাফিক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হেলাল উদ্দিন ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, বিভিন্ন এলাকা থেকে ঘাটের দিকে মানুষজন আসছে। কিন্তু ফেরি চলাচল বন্ধ আছে। জরুরি পরিষেবায় নিয়োজিত “ফেরি কুমিল্লা” লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে ঘাট ছেড়ে গেছে। এছাড়া, কোনো ফেরি চালুর জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এখনও নির্দেশনা দেয়নি।

তানজিল হাসান
ঢাকা ট্রিবিউন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.