রাজদিখান নদী ভাঙ্গনে ১০টি বাড়ি বিলিন, আতঙ্কে ৫০ টি পরিবারসহ এলাকাবাসী

হুমকিতে ইসলামপুর কামিল মাদ্রাসা
নাছির উদ্দিন: মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান ধলেশ্বরী নদীর পানি কমার সাথে সাথে নদী ভাঙন তীব্রতা বারছে। গত দুই দিন নদী গর্ভ বিলীন হয়ছে উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়ন ইসলামপুর গ্রামের প্রায় ১০ টি বাড়ী। হুমকির মুখে পড়েছে ৫০টি পরিবারসহ এলাকাবাসি ও ইসলামপুর কামিল মাদ্রাসা । এতে নদী এলাকার মানুষ আতংকের মধ্যে রয়েছ। প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকায় কোন ধরণের সাহায্য পাচ্ছে না বলে ভাঙন কবলিত লোকজন অভিযাগ করেন। অনেক পরিবার তড়িঘড়ি করে তাদের ঘরবাড়ি অন্য এলাকায় সরিয়ে নিয়ছে। আজ রবিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ধলেশ্বরী নদীর ভাঙন দিশেহারা ইসলামপুর গ্রামর সমস্ত মানুষ। ক্ষতিগ্রস্তরা বলন, হঠাৎ নদীর পানি কমাতে থাকায় বাড়ি ভাঙ্গনের মুখে কোন মতে বেচে আছি। বসতভিটাসহ বসতি সবই নদীত চল গছ। হঠাৎ হঠাৎ করে বড় বড় পাড় ভেঙ্গে পড়ছে।

স্থানীয় ইউ পি সদস্য মফিজুল ইসলাম কফিল ও ভুক্তভোগীরা জানান, গত বছর থেকে আমরা ভাঙ্গনের মধ্যে আছি। পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জানিয়েছিলাম কিন্তু কোন ফল আসেনি। যদি জমির আলীর বাড়ীর টেক (খাস জমি) সরকারি ভাবে ড্রেজিং করে তাহলে নদীর গতি আগের জায়গায় চলে যাবে। বাড়িতে চাপ পরবে না।

কেয়াইন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আশ্রাফ আলী শেখ বলেন, নদী ভাঙন ক্ষতিগ্রস্তদর সংখ্যা প্রতিদিনি বাড়ছে। নদীত পানি কমার সাথে সাথে তীব্র স্রোতর কারণে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিচ্ছে। এ পযন্ত প্রায় ২০ টির মত বাড়ী নদীতে ভেঙ্গে নিয়েছ । সিকদার হাটি সহ এলাকাবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

ইসলামপুর কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মা.জহুরুল হক বলন, এ বিদ্যালয় সবমিলে ১০০০ জন ছাত্র ছাত্রী লেখা পড়া করে। আমরা এখন খুবই আতংকের মধ্যে আছি। ভাঙ্গন অব্যাহত থাকলে আর কয়েক দিনর মধ্যে নদী গর্ভ বিলীন হয় যাবে দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিও।

উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশফিকুন নাহার বলেন, বিষয়টি আমি জানি পানি উনয়ন বোর্ডর কর্মকর্তাদের সাথে আমার কথা হয়েছ তারাও আজকে ভাঙন কবলিত এলাকা পরির্দশনে আসবেন । খুব দ্রুতগতিতে প্রশাসনের পক্ষ হতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.