নব্বই দশকের ‘বদি ভাই’ থেকে এই দশকের ‘মামা’

৯০ দশকের শুরুর দিকে ‘কোথাও কেউ নেই’ ধারাবাহিকে ‘বদি’ চরিত্র দিয়ে প্রথম সবার নজরে আসেন আবদুল কাদের। শেষের দশকে এসে তিনি হানিফ সংকেতের ‘ইত্যাদি’তে জনপ্রিয়তা পান ‘মামা’ চরিত্রে হাজির হয়ে।

টানা তিন দশকের অভিনয় ব্যস্ততা পেরিয়ে এখন তিনি মৃত্যু নামের নিশ্চিন্তপুরে পাড়ি দিয়েছেন। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা ২০ মিনিটে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এই বহুমাত্রিক অভিনেতা। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর।

আবদুল কাদেরের জন্ম মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ী থানার সোনারং গ্রামে। স্ত্রী খাইরুননেছা কাদের। তিনি এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক।

সোনারং হাইস্কুলে পড়ার পর বন্দর হাইস্কুল থেকে এসএসসি, ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে বিএ অনার্স ও এমএ করেন তিনি।

অর্থনীতিতে সিঙ্গাইর কলেজ ও লৌহজং কলেজে অধ্যাপনা এবং বিটপী বিজ্ঞাপনী সংস্থায় এক্সিকিউটিভ হিসেবে চাকরির পর ১৯৭৯ সাল থেকে আন্তর্জাতিক কোম্পানি ‘বাটা’তে চাকরিরত এখনও।

দেশের নাট্যাঙ্গনে আবদুল কাদের একটি সুপরিচিত নাম। স্কুলজীবন থেকেই অভিনয় শুরু তার। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘ডাকঘর’ নাটকে অমল চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তার প্রথম অভিনয়।

১৯৭২-৭৪ পর পর তিন বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ‍মুহসীন হল ছাত্র সংসদের নাট্য সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সালে আন্তহল নাট্য প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন মুহসীন হলের নাটক সেলিম আল দীন রচিত ও নাসির উদ্দিন ইউসুফ নির্দেশিত ‘জন্ডিস ও বিবিধ বেলুন’-এ অভিনেতা হিসেবে পুরস্কার লাভ করেন।
বাংলাদেশ টেলিভিশন প্রযোজিত বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ জ্ঞানের অনুষ্ঠান ‘বলুন দেখি’-তে চ্যাম্পিয়ন দলের অন্যতম সদস্য হিসেবে পুরস্কারও লাভ করেন আবদুল কাদের।

‘কোথাও কেউ নেই’ নাটকে যথাক্রমে বদি, বাকের ভাই ও মজনু১৯৭৫ সাল পর্যন্ত ডাকসু নাট্যচক্রের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ছিলেন। ১৯৭৩ সাল থেকে থিয়েটার নাট্যগোষ্ঠীর সদস্য এবং চার বছর যুগ্ম-সম্পাদকের ও ছয় বছর সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে থিয়েটারের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

১৯৭৪ সালে ঢাকায় আমেরিকান কলেজ থিয়েটার ট্রুপ কর্তৃক আয়োজিত অভিনয় কর্মশালায় প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। ১৯৭২ সাল থেকে টেলিভিশন ও ১৯৭৩ সাল থেকে রেডিও নাটকে অভিনয় শুরু হয় তার। টেলিভিশনে তার অভিনীত প্রথম কিশোর ধারাবাহিক নাটক ‘এসো গল্পের দেশে’।

আবদুল কাদের বাংলাদেশ টেলিভিশনের নাট্যশিল্পী ও নাট্যকারদের একমাত্র সংগঠন ‘টেলিভিশন নাট্যশিল্পী ও নাট্যকার সংসদ’ টেনাশিনাস-এর সহ-সভাপতি।
থিয়েটারের প্রায় ৩০টি প্রযোজনায় প্রতিটিতে অভিনয় এবং ১০০০টিরও বেশি প্রদর্শনীতে অভিনয়ে অংশগ্রহণ করেছেন।

তার উল্লেখযোগ্য মঞ্চনাটকের মধ্যে রয়েছে ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’, ‘এখনও ক্রীতদাস’, ‘তোমরাই’, ‘স্পর্ধা’, ‘দুই বোন’, ‘মেরাজ ফকিরের মা’ প্রভৃতি।

১৯৮২ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক নাট্য উৎসবে বাংলাদেশের নাটক থিয়েটারের ‘পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়’-এ অভিনয় করেন। এছাড়া দেশের বাইরে জাপান, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ভারত, দুবাই এবং দেশের প্রায় সবক’টি জেলায় আমন্ত্রিত হয়ে মঞ্চে অভিনয় করেছেন। এছাড়া টেলিভিশনে দুই হাজারের বেশি নাটকে অভিনয় করেছেন।

তার উল্লেখযোগ্য টিভি নাটকের মধ্যে রয়েছে, ‘কোথাও কেউ নেই’, ‘মাটির কোলে’, ‘নক্ষত্রের রাত’, ‘শীর্ষবিন্দু’, ‘সবুজ সাথী’, ‘তিন টেক্কা’, ‘যুবরাজ’, ‘আগুন লাগা সন্ধ্যা’, ‘এই সেই কণ্ঠস্বর’, ‘আমার দেশের লাগি’, ‘প্যাকেজ সংবাদ’, ‘সবুজ ছায়া’, ‘কার ছায়া ছিল’, ‘দীঘল গায়ের কন্যা’, ‘কুসুম কুসুম ভালোবাসা’, ‘নীতু তোমাকে ভালোবাসি’, ‘আমাদের ছোট নদী’, ‘ভালমন্দ মানুষেরা’, ‘দূরের আকাশ’, ‘ফুটানী বাবুরা’, ‘হারানো সুর’, ‘দুলাভাই’, ‘অজ্ঞান পার্টি’, ‘লোভ’, ‘মোবারকের ঈদ’, ‘বহুরূপী’, ‘এই মেকাপ’, ‘ঢুলী বাড়ী’, ‘সাত গোয়েন্দা’, ‘এক জনমে’, ‘জল পড়ে পাতা নড়ে’, ‘খান বাহাদুরের তিন ছেলে’, ‘ইন্টারনেটের বউ’, ‘ঈদ মোবারক’, ‘সিটিজেন’, ‘হতাই’, ‘ফাঁপড়’, ‘চারবিবি’, ‘সুন্দরপুর কতদূর’, ‘ভালবাসার ডাক্তার’, ‘চোরাগলি’, ‘বয়রা পরিবার’ প্রভৃতি।

চলচ্চিত্র ‘রং নাম্বার’সহ অসংখ্য বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন এই অভিনেতা। তবে সবচেয়ে নিয়মিত ছিলেন হানিফ সংকেতের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’র মঞ্চে।

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.