চিকিৎসার জন্য গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন স্বামী-স্ত্রী

চিকিৎসার জন্য এসে লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন স্বামী-স্ত্রী। বাম হাতের কব্জি ভেঙে রেহেনা বেগম স্বামী মো. সামছুদ্দিনের সঙ্গে সোমবার ( ৪ এপ্রিল) বিকেলে গিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। ফেরার পথে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষা নদীতে সাবিত আল হাসান লঞ্চ ডুবিতে নিখোঁজ হন তারা। ১৯ ঘণ্টা পর সোমবার দুপুরে স্বামী স্ত্রীর লাশ শীতলক্ষা থেকে উদ্ধার করা হয়।

তাদের ছোট ছেলে দীন ইসলাম জানান, আমার বাবা-মা সোমবার বিকেল ৩ টার দিকে চিকিৎসার জন্য নারায়ণগঞ্জ যায়। পরে লঞ্চ ডুবির ঘটনা টিভিতে দেখে আমরা মা-বাবার খোজেঁ নামি। ১৯ ঘণ্টা পর তাদের লাশ পাই। আমার বড় বোন ও তার স্বামী মনির হোসেন তাদেরক ডাক্তার দেখিয়ে ওই লঞ্চে তুলে দেন। লঞ্চ দুর্ঘটনার পর থেকে তারা নিখোঁজ ছিল।

নিহত মো. সামসুদ্দিন (৮৩) ও তার স্ত্রী রেহানা (৬৩) মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার ৭নম্বর ওয়ার্ডের চরকিশোরগঞ্জের বাসিন্দা।

মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান তালুকদার মঙ্গলবার (৬ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে জানান, লঞ্চ ডুবির ঘটনায় এ পর্যন্ত মুন্সিগঞ্জে ১৯ টি মরদেহ উদ্ধার করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এর মধ্যে নারী ১৩ জন,পুরুষ ৬ জন। মুন্সিগঞ্জে আর কেউ নিখোঁজ আছে কি না জানতে চাইলে সে জানায় এ ব্যাপারে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।

ব.ম শামীম/ ঢাকা পোষ্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.