গজারিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মা, ছেলে ও দুই মেয়েকে পিটিয়ে আহত

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মা, ছেলে ও দুই মেয়েকে পিটিয়ে আহত ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত ব্যক্তিরা হলেন ইমামপুর ইউনিয়নে মাথাভাঙ্গা গ্রামের আহমদ আলীর স্ত্রী লাইলি বেগম(৪৫), তাদের ছেলে সুজন(১৮), বড় মেয়ে সুরমা(২২) ও ছোট মেয়ে সখি(১৬)।

আহতদের মধ্যে সুজন ও সখি প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরে গেছে। গুরুতর আহত অবস্থায় লাইলি বেগম ও তার বড় মেয়ে সুরমা বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

গেল সোমবার সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে উপজেলার ইমামপুর ইউনিয়নে মাথাভাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সুরমা বেগম প্রতিবেশী মহিনসহ ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে গজারিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

আহত লাইলি বেগম জানান, ঘটনার দিন তিনি ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। এমন সময় হঠাৎ তার ছেলের আর্তচিৎকার শোনে ঘুম থেকে উঠে দেখেন দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে প্রতিবেশী মহিনসহ তার পরিবারের লোকজন উঠানে ফেলে তার ছেলেকে মারধর করছে। তিনি প্রতিবাদ করলে মহিন গংরা তার উপর হামলা চালিয়ে তাকেও পিটিয়ে আহত করেন । এ সময় তার দুই মেয়ে ঠেকাতে গেলে তারা সুরমা ও সখিকে টেনে হিচড়ে ঘরে নিয়ে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে।

সুরমা আক্তার জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে, তারা আমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত এবং পিঠে কামড়ে দিয়ে ক্ষত করছে, ডায়াবেটিস রোগসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত আমার মাকে বঠি দিয়ে কোপ দিয়ে জখম করে ।

এ বিষয়ে জানতে প্রতিপক্ষ মহিন গংদের সাথে কথা বললে তারা লাইলি বেগমের বক্তব্য মিথ্যা বানোয়াট বলে জানান। তাদের বিরুদ্ধে তারাও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান।

এ প্রসঙ্গে গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো রইছ উদ্দিন জানান, এঘটনায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

Jewel Dewan

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.