মুন্সীগঞ্জে যুবলীগ নেতা ইউপি সদস্যসহ গ্রেফতার ৩

গুলিবর্ষণ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা
মুন্সীগঞ্জ সদরের পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদের জিয়সতলা গ্রামে গুলিবর্ষণ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ মামলার প্রধান আসামি পঞ্চসার ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ও ইউপি সদস্য জাহিদ হাসানসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জাহিদ হাসান নয়াগাঁও গ্রামের মৃত কাদের মাদবরের ছেলে। গ্রেফতার অপর দুজন হলেন, নতুন গাঁও গ্রামের সফর উদ্দিন মল্লিক সিকদারের ছেলে যুবলীগকর্মী জাহাঙ্গীর (৪২) ও নয়াগাঁও পূর্বপাড়ার মৃত হামিদুর রহমানের ছেলে ফায়জুল (৪০)।

এর আগে বুধবার বিকেলে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চাঁদা দাবি করে না পেয়ে ইউপি সদস্য জাহিদ হাসানের নেতৃত্বে জিয়সতলা গ্রামের মনির হোসেনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে গুলিবর্ষণ, ককটেল বিস্ফোরণ ও মারধরের ঘটনা ঘটায় সন্ত্রাসী বাহিনী।

সদর থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক জানান, ইউপি সদস্যসহ বেশ কয়েকজনকে আসামি করে বুধবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে সদর থানায় বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। পরে ইউপি সদস্যসহ তিন আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বর্তমানে ওই গ্রামের পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার বিকেলে মনির হোসেনের বাড়িতে হামলা চালায় ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জাহিদ হাসানের লোকজন। এ সময় গুলিবর্ষণ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হলে হাসিবুল হাসান শান্ত (২৫), শিমুল তালুকদার (৩০) ও মনির হোসেনসহ (৪৮) পাঁচজন আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়।

এ ঘটনার পর দ্বিতীয় দফায় জিয়সতলা গ্রামে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতংক সৃষ্টি করে যুবলীগ নেতার লোকজন।

জানা যায়, মনির হোসেন সরদার পাড়া এলাকার আবুল হোসেনের কাছ থেকে ১০ শতাংশ জমি ৩৫ লাখ টাকায় ক্রয় করেন। মনির হোসেন বলেন, পাঁচ বছর আগে জমির বায়না দলিল করেছি। পুরো টাকা পরিশোধ করে জমিটি লিখে নেয়ার কথা। কিন্তু হঠাৎ করে বুধবার পঞ্চসার ইউপির সদস্য ও যুবলীগ সভাপতি তার দলবল নিয়ে জমিতে এসে আমার থেকে চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ করে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.