মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের কনেকে অভিবাবকদের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে

আরিফ হোসেনঃ মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ের কনেকে তাদের অভিবাবকদের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। এসময় শর্ত দেওয়া হয়েছে আইন অনুযায়ী বয়স পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত কোন দাম্পত্য সম্পর্ক স্থাপন করা যাবে না।

জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মোকসেদপুর উপজেলার মোল্লাদি গ্রামের শাহাদাৎ হোসেনের মেয়ে স্বার্ণার(১৫) সাথে শ্রীনগর উপজেলার সোন্দারদিয়া গ্রামের লিটন হাওলাদারের পুত্র ইয়াসিন হাওলাদারের (২১) সাথে বিয়ে হয়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকার দোহার উপজেলার মেঘুলা বাজার এলাকায় কন্যার নানা বাড়ীতে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার পর কনেকে তার স্বামীর বাড়িতে নিয়ে আসা হয়। বিষয়টি মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারের নজরে আসলে তিনি শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণব কুমার ঘোষকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দেন। শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে বিয়ের বয়স সঠিক রয়েছে মর্মে কাগজ পত্র উপস্থাপন করা হলে তিনি দোহার ও মোকসেদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের সহায়তায় নিশ্চিত হন উত্থাপিত কাগজপত্র সঠিক নয়। পরে পুলিশের সহায়তায় কনেকে উদ্ধার করে তার বাবা-মায়ের জিম্মায় দেওয়া হয়।

শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণব কুমার ঘোষ জানান, ডিসি স্যারের নির্দেশে কন্যাকে তার বাবা-মায়ের জিম্মায় দেওয়া হয়েছে। বরের উপরও নজর রাখা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.