করোনা রোগীর বিরুদ্ধে ২ নার্সকে ছুরিকাঘাতের অভিযোগ

করোনার উপসর্গ নিয়ে আইসিইউতে ভর্তি থাকা এক রোগীর বিরুদ্ধে দুই নার্সসহ তিনজনকে ছুরিকাঘাত করার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে নার্স সংগঠনগুলো। দ্রুত ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার আহ্বান জানান সংগঠনের নেতার।

রাজধানীর উত্তরায় ‘শিন শিন জাপান হাসপাতালে’ এ ঘটনা ঘটেছে। হাসপাতালের ম্যানেজার মো. শরিফুল ইসলাম উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা করেছেন। তবে অভিযুক্ত পাল্টা দাবি করে বলেছেন, তাকে হত্যার চেষ্টা করা হলে তিনি আত্মরক্ষায় ছুরিকাঘাত করেন।

এজাহারে শরিফুল ইসলাম বলেছেন, শ্বাসকষ্টসহ করোনার উপসর্গ নিয়ে গত ১৮ জুলাই সবুজ পিরিস (৩৫) নামে ওই রোগী হাসপাতালে ভর্তি হন। তিনি মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার শুলপুর গ্রামের মৃত সেন্টু পিরিস এর ছেলে। আইসিইউতে থাকা অবস্থায় ২২ জুলাই দিবাগত রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ নার্স মিতু রেগো (২৪), ইমনা আফরোজ কাকলী (৪০) এবং ওয়ার্ড বয় মো. সাগরের (২৫) হাতে ও পেটে ছুরিকাঘাত করে।

এজাহারে আরও বলা হয়, তাদের চিৎকারে হাসপাতালের দর্শনার্থী অন্যান্য ডাক্তার এবং স্টাফরা ঘটনাস্থলে গিয়ে সবুজকে শান্ত কারার চেষ্টা করেন। কিন্তু তিনি উশৃঙ্খল আচরণসহ লাফালাফি করতে থাকেন এবং কয়েকবার মাটিতে পড়ে যান। পরে স্টাফরা তার হাত থেকে রক্তমাখা ছুরি উদ্ধার করেন। একইসঙ্গে আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। মিতু ও কাকলীর অবস্থা আশঙ্কাজনক। তারা এই হাসপাতালে আইসিউইতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

শনিবার দুপুরে শরিফুল ইসলাম জানান, নার্সদের অবস্থা এখন কিছুটা ভালো। এছাড়া ওই রোগীকে চিকিৎসার জন্য শুক্রবার ইউনাইটেড হাসপাতালে নিয়ে গেছেন তার স্বজনরা।

সবুজ দাবি করেন, তর্কতর্কির এক পর্যায়ে শিন শিন জাপান হাসপাতালের নার্স ও ওয়ার্ড বয় মিলে তাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করেন। তিনি আত্মরক্ষায় ছুরিকাঘাত করেন।

এ বিষয়ে উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহ মো. আক্তারুজ্জামান ইলিয়াস বলেন, ‘অভিযোগটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে নার্স সংগঠনগুলো। দ্রুত ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার আহ্বান জানান সংগঠনের নেতার।

স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদ (স্বানাপ) মহাসচিব ইকবাল হোসেন সবুজ বলেন, ‘এটি একটি ন্যাক্কারজনক ঘটনা। আমরা এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

এছাড়া, নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে সোসাইটি ফর নার্সেস সেফটি অ‌্যান্ড রাইটস।

চ্যানেল আই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.