চলমান জরুরি অবস্থার মেয়াদ বৃদ্ধি করলো জাপান

রাহমান মনি, প্রধানমন্ত্রীর অফিস থেকে: করোনার সংক্রমণে প্রতিরোধে জাপানের টোকিওসহ অন্য ২১টি প্রিফেকচারে জারি করা চলমান জরুরি অবস্থা ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে । শর্ত সাপেক্ষে ২টি প্রিফেকচার থেকে প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী সুগা । আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে মিয়াগি এবং ওকায়ামা প্রিফেকচার থেকে জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার কার্যকর হবে।

আজ বৃহস্পতিবার (৯সেপ্টেম্বর) দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা তার কার্যালয়ে ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে এ জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে এ ঘোষণা কার্যকর হবে বলে জানান তিনি।

সুগা বলেন , সরকার নভেম্বর থেকে ভ্রমণ, বড় পরিসরের ইভেন্ট এবং অ্যালকোহল পরিবেশনের উপর কোভিড -১৯ এর সীমাবদ্ধতা শিথিল করার পরিকল্পনা করেছে, তবে বেশিরভাগ টিকা দেওয়া সত্বে কিছুসংখ্যক এখন টিকা প্রদানের বাইরে রয়েছে। তাদের দ্রুত টিকার আওতায় আনা এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার শর্তে জরুরি অবস্থার অধীনে এলাকায় সীমাবদ্ধতা সহজ করা হবে।

সুগা বলেন বর্তমানে ৬০% লোক কে করোনা ভ্যাক্সিন এর আওতায় আনা হলেও এই মাসের মধ্যে ৭০% লোককে করোনার ভ্যাক্সিন এর আওতায় আনার কাজ চলছে। প্রতিদিন ১০ লাখ লোককে ভ্যাক্সিন দেয়া হচ্ছে। করোনা নামের অদৃশ্য শক্তির সাথে লড়াই করে টিকে থাকা সত্যিই কঠিন একটি চ্যালেঞ্জ। তবে, আমি অনেক কিছুই শিখতে পেরেছি বলে সুগা যোগ করেন।

সুগা জাপানী জনগনের ধৈর্য ধারণের প্রশংসা করে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। একইসাথে তিনি জনগনের সহযোগিতা কামনা করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরামর্শ দেন।

সুগা বলেন , সরকার আগামী মাসের প্রথম দিকে সহজ পরিকল্পনার একটি পরিকল্পনা নিয়ে পরীক্ষা করবে যা সংক্রমণের পরিস্থিতি মূল্যায়ন করার সাথে সাথে রেস্তোরাঁ এবং বারগুলিকে বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতে ধীরে ধীরে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরানো হবে।

উল্লেখ্য জাপানে বর্তমানে রাজধানী টোকিও সহ মট ২১টি প্রিফেকচারে জরুরী অবস্থা চলছে । যা আগামী ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বহাল ছিল । অন্যান্য প্রিফেকচার গুলো হচ্ছে, চিবা, কানাগাওয়া, ওকিনাওয়া, ওসাকা, সাইতামা , ইবারাকি, তোচিগি, গুন্মা, শিযুওকা, কিয়োতো, হিয়োগো ফুকুওকা , হোক্কাইদো, মিয়াগি, গিফু, আইচি, মিএ, শিগা ,ওকায়ামা এবং হিরোশিমা ।

এছাড়াও হোক্কাইদো, গিফু, আইচি, মিএ, শিগা , এবং হিরোশিমাকে বিশেষ নজরদারিতে রাখা হয়।

প্রতাহার করা হলেও মিয়াগি এবং ওকায়ামা সহ ফুকুশিমা, ইশিকাওয়া, মিয়াজাকি, কুমামোতো, কাগাওয়া এবং কাগোশিমা প্রিফেকচার সহ পূর্বেকার হোক্কাইদো, গিফু, আইচি, মিএ, শিগা , এবং হিরোশিমাকে বিশেষ নজরদারির আওতায় রাখা হয়।

আজ টোকিওতে ১হাজার ৬৭৫ জন সহ জাপান জুড়ে মোট ১০ হাজার ৪০০ জন নতুন করে করোনা সনাক্ত করা হয়।

দেশটিতে এখন পর্যন্ত সরকারি হিসাবে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ২৩ হাজার ৮১১ জনে এবং মৃত্যু হয়েছে ১৬ হাজার ৭৫৬ জনের।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.