দখল হয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী মুন্সীরহাট বাজার: লিজ ছাড়াই দোকানঘর

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ঐতিহ্যবাহী মুন্সীরহাট বাজারটি ধীরে ধীরে দখল হয়ে যাচ্ছে। বাজারের পশুমহাল, যানবাহন চলাচল ও জনসাধারণের চলাচলের পথ সংকুচিত করে মুন্সীরহাট বাজারে সরকারের একটি অংশ দখল করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। সরকারি এই জায়গা দখল করে ১০-১২ টি দোকানঘর উত্তোলন করেছে একটি প্রভাবশালী মহল। এই দখল প্রক্রিয়ার সাথে মুন্সীরহাট ব্যবসায়ী কমিটির সভাপতি হাজী তৈয়ব আলী মৃধা, তার ছেলে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল মৃধা ও মুন্সীরহাট ব্যবসায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক রবিউল আউয়াল রবি মেম্বার গং জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। পশুমহাল ঘেষে প্রধান রাস্তা দখল করে দোকানঘর উত্তোলন করায় জনসাধারণ ও যানবাহন চলাচল এবং সাপ্তাহিক পশুরহাটে পশু বেচাকেনায় ভোগান্তি দেখা দিয়েছে।

প্রায় দুই’শ বছরের ঐতিহ্যবাহী মুন্সীরহাট বাজারটি। শনি ও মঙ্গলবার দুইদিন সাপ্তাহিক হাট বসে এই বাজারটিতে। পশু বেচাকেনা ছাড়াও বাজারটিতে নানাধরণের ভোগ্যপণ্য বসে। কিন্তু দিনদিন বাজারটি বিভিন্ন অংশ দখল করে বাজারটির ঐহিত্য ব্যাহত করছে একটি মহল। কোন রকম লিজ না নিয়েই বাজারটির সরকারি সম্পত্তি দখল করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে সিন্ডিকেটটির বিরুদ্ধে। দ্রুত বাজারটিতে দখলকৃত স্থাপনা উচ্ছেদ করার দাবি করেছেন স্থানীয়রা। নতুবা মুন্সীরহাটের অধিকাংশ সরকারি সম্পত্তি সিন্ডিকেটটির দখলে চলে যাওয়ার আশঙ্কার করছেন বাজারের ব্যবসায়ী ও পথচারিরা।

এ ব্যাপারে মুন্সীরহাট ব্যবসায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক রবিউল আউয়াল রবি মেম্বার বলেন, তারা লিজের জন্য আবেদন করেছেন। লিজ পেলে পুনরায় কাজ শুরু করবেন। অথবা স্থাপনা ভেঙ্গে সরিয়ে নিবেন।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল মৃধা বলেন, উত্তোলন করা দোকানঘরগুলো সব তার নয়। জেলা প্রশাসনের অফিস থেকে এগুলোর জন্য লিজ নেয়া আছে। এছাড়াও পৌরসভা থেকেও টেন্ডারের মাধ্যমে নেয়া হয়েছে।

দোকানঘর উত্তোলন ও লিজ সংক্রান্ত বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার কামরুল হাসান মারুফ জানান, গত বৃহস্পতিবার দোকানঘর উত্তোলন করার কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তারা কোন লিজ নেয়নি এবং আবেদনও করেনি।

অবজারভার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.